সকল শিরোনাম

রূপগঞ্জে পুলিশ পরিদর্শকসহ ব্যবসায়ীকে হানজালা বাহিনীর হুমকি, ইটপাটকেল নিক্ষেপে দুই পুলিশ সদস্য আহত রূপগঞ্জে মন্ত্রীর পক্ষে ছাত্রলীগ নেতারদের বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হলেন আহমদে জামাল ঢাকায় বিয়ে উৎসব, অংশ নেবেন কারা? ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই দেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু গোটা বিশ্বই ধ্বংস হবে মশা মারার ওষুধ কতটা কার্যকর? সশস্ত্র বিক্ষোভের শঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে সতর্কতা বিটিএমসিতে অনিয়ম ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে দল ঘোষণা আমাকে বিয়ে করবে? শ্রীলেখা ক্রেডিট কার্ডের সর্বোচ্চ সুদ ২০ শতাংশ নির্ধারণ ১১৬৮ নমুনায় ৮৮ আক্রান্ত করোনা কেড়ে নিল আরও ২১ প্রাণ বার্সেলোনার সভাপতি নির্বাচন স্থগিত ভোটে সক্রিয় ছিল না বিএনপি টাকা যাঁর, টিকা তাঁর এমন যেন না হয়… ওবায়দুল কাদেরের ভাই কাদের মির্জা জয়ী মানুষের দারিদ্র্যের অন্যতম কারণ উপার্জনে সুযোগের সীমাবদ্ধতা আমদানি বৃদ্ধিতে অর্থনীতিতে স্বস্তির ইঙ্গিত তৈরি পোশাকের ক্রেতাদের এগিয়ে আসার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর স্বামীর প্ররোচনায় স্ত্রীর আত্মহত্যা করোনা ভ্যাকসিন জানুয়ারিতেই পাব ॥ স্বাস্থ্যমন্ত্রী হোটেলে আটকে রেখে তরুণীকে ২ বন্ধুর পালাক্রমে ধর্ষণ ১৯ জানুয়ারী থেকে যুক্তরাজ্যে সব ধরণের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা


চট্টগ্রামে ১০ মাস বয়সী শিশুর করোনা জয়

| ২০ বৈশাখ ১৪২৭ | Sunday, May 3, 2020

---চট্টগ্রাসে ১০ মাস বয়সী সেই শিশু করোনা জয় করে ফিরল মায়ের সাথে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এমন একটি পোস্ট দিয়েছেন চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের এক চিকিৎসক। তা শেয়ার করেন ওই হাসপাতালের আরও কয়েকজন চিকিৎসক। পোস্টে জানানো হয়, শনিবার (০২ মে) বিকেলের দিকে শিশু আবিরকে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেয়া হয়। সব উদ্বেগ আর শঙ্কার অবসান ঘটিয়ে শিশু আবির ও তার মা ফিরে যান স্বপরিবারে। রবিবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেন চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক জামাল মোস্তফা।

তিনি বলেন, মাত্র ১০ মাসের শিশু, সেই কিনা করোনায় আক্রান্ত! তার চিকিৎসা কিভাবে হবে তা নিয়ে চিন্তায় পরে গিয়েছিলাম সবাই। তবে আলহামদুলিল্লাহ, গতকাল তার দ্বিতীয় নমুনা পরিক্ষাটিও নেগেটিভ আসায় আবিরকে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ২০ এপ্রিল চট্টগ্রামের বিআইটিআইডি ল্যাবে ১০ মাস বয়সী চন্দনাইশের শিশু আবিরের করোনা পজেটিভ আসে। যা সবাইকে হতবাক করেছিলো।
এরপর তার পরিবারের বাকি সদস্যদেরও নমুনা পরীক্ষা করা হয়। কিন্তু তাঁরা সবাই করোনা নেগেটিভ। এমন কি চন্দনাইশে তাঁদের গ্রামেও কোনো করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়নি।

তিনি বলেন, তার পরিবারের কোন বিদেশ ফেরতের ইতিহাস নেই অথচ মাঝখান থেকে ১০ মাসের একটা শিশু করোনায় আক্রান্ত! তাহলে কিভাবে আক্রান্ত হলো শিশু আবির। এটাই বড় রহস্য। তবে ধারনা করছি, এর আগে তাঁকে যখন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিউমোনিয়ার চিকিৎসার জন্য আনা হয়েছিলো তখন হয়তো কোনো ভাবে সংক্রমিত হয়েছে।

তিনি বলেন, শিশু আবির যখন করোনায় আক্রান্ত তখন মা রুমা আক্তারকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল শুধু দুধ পান করিয়ে যেন নিজে নিরাপদে থাকে। কিন্তু করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ভয় থাকা সত্বেও মা রুমা একবারের জন্যও শিশু আবিরের কাছ থেকে সরে জাননি। বরং করোনা আক্রান্ত শিশুকে নিয়ে ছিলেন জেনারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডেই। পুরো ১২দিন আবিরের সঙ্গে থাকলেও মা রুমার নমুনা করোনা নেগেটিভ আসে। মমতাময়ী মা বলেই হয়তো এমনটা সম্ভব হয়েছে।