সর্বশেষ সংবাদ: জাতীয় শিক্ষাক্রম অনুসরণ করছে ইবতেদায়ী মাদ্রাসা: শিক্ষামন্ত্রী রূপগঞ্জে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় যুবককে কুপিয়ে জখম করেছে কিশোর গ্যাং সদস্যরা সাবেক প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ কানাডা-আমিরাতে ঢুকতে না পেরে ফিরে আসছেন ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে ——- তারা‌বো পৌরসভার মেয়র হা‌সিনা গাজী সোনারগাওঁয়ের সাদিপুর ইউ,পিতে ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০৪ পরিবহন চাঁদাবাজ গ্রেফতার রূপগঞ্জে পুলিশ পরিদর্শকসহ ব্যবসায়ীকে হানজালা বাহিনীর হুমকি, ইটপাটকেল নিক্ষেপে দুই পুলিশ সদস্য আহত রূপগঞ্জে মন্ত্রীর পক্ষে ছাত্রলীগ নেতারদের বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হলেন আহমদে জামাল ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই দেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু

সকল শিরোনাম

জ্ঞানপাপীরা পকেট ভরে : দেশীয় শিক্ষা রসাতলে বাণিজ্যমেলার মেলার বাহিরে ইজারাবিহীন হোটেলের ছড়াছড়ি  : মেলার প্রবেশ সড়ক ঢাকা বাইপাসে ১৭ কিলোমিটার যানজট ;  ভেতরে ক্রেতাশুন্য প্যাভিলিয়ন সুশাসন গণমাধ্যম এবং কিছু কথা রাজনৈতিক সংঘাত বনাম জনসমাগমের রাজনীতি!! ব্রাজিল খেলায় সুনামি বইয়ে দিল : প্রতিপক্ষের বুকে কাঁপুনি শুরু বঙ্গবন্ধু টানেলের আংশিক খুলে দেওয়া হবে এ মাসেই ডিসেম্বরে ভারতের বিদ্যুৎ মিলবে বাংলাদেশে ১১ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা জাকারবার্গের মিয়ানমারে উপর নিষেধাজ্ঞা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হোন শর্ত ছাড়াই বাংলাদেশকে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে আইএমএফ সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ স্থগিত কাতার বিশ্বকাপ : কন্টেইনারে রাতযাপনে গুনতে হবে ২১ হাজার টাকা ঋণের টাকায় দামি গাড়ি! পৃথিবীর তাপ রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে ১৫ নভেম্বর বিশ্বের জনসংখ্যা হবে ৮০০ কোটি আর্জেন্টিনা উগ্র ফুটবল সমর্থকগোষ্ঠী : বিশ্বকাপে ৬ হাজার আর্জেন্টাইন সমর্থক নিষিদ্ধ ২৫ কেজি সোনা নিলামে তুলবে বাংলাদেশ ব্যাংক খেলা যেন হয় শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ ডিএসইর মানবসম্পদ নীতি নিয়ে বৈঠক ডেকেছে বিএসইসি ঋণ পাচ্ছে বাংলাদেশ যুদ্ধ হয়ে যাক একটা.. দীর্ঘদিন পর রাজনৈতিক সমাবেশে আসছেন প্রধানমন্ত্রী টাকা যেন একবারেই মূল্যহীন : ৫০ বছরে পণ্যমূল্য বেড়েছে ৮০ গুণ যৌন হয়রানি প্রতিকার কোথায়?

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

জ্ঞানপাপীরা পকেট ভরে : দেশীয় শিক্ষা রসাতলে খেলা যেন হয় শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ যৌন হয়রানি প্রতিকার কোথায়? কাদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ হোক বাংলাদেশের আমলাতন্ত্র পুরোপুরি দুর্নীতিগ্রস্ত চলমান বিক্ষোভে ইরানের ভবিষ্যৎ বার্তা যুদ্ধ বন্ধ না হলে মন্দাও বন্ধ হবে না দুরন্ত নির্ভীক বিদ্যুত খাত বৈশ্বিক সঙ্কট বর্তমান বাস্তবতা হত্যা-হামলা-রক্তাক্ত কেন ঘটবে? দুর্নীতি ও অনিয়ম বন্ধ করতে হবে টেকসই ইলেকট্রনিকস শিল্পে পরিবেশ প্রকৌশল মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের রাজনীতি বনাম বিরোধী রাজনীতি ‘‘মাদক ও মাদকাসক্তি নিয়ন্ত্রনে সর্বাত্তক প্রয়াস প্রয়োজন’’ বাংলাদেশে ভেজালমুক্ত খাবার প্রাপ্তি কঠিন কেন?

দুরন্ত নির্ভীক

| ২ কার্তিক ১৪২৯ | Monday, October 17, 2022

দুরন্ত নির্ভীক

 জুনাইদ আহমেদ পলক  : বড় বোন শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা এবং বড় ভাই শেখ কামাল ও শেখ জামালের নয়নের মণি শিশু শেখ রাসেল। রাতের ঘুম শেষে পিতা মুজিবের প্রশস্ত বুকের ওপর ছোট্ট পাখির মতো শুয়ে শরীরের উষ্ণতা নিত সে। বঙ্গবন্ধুর হৃৎপি-জুড়ে প্রতিটি শ্বাস-প্রশ্বাসে ধমনির স্পন্দনে তখন স্বৈরাচার আইয়ুববিরোধী স্লোগান প্রতিধ্বনিত হচ্ছিল। সামরিক স্বৈরশাসকের গ্রাস থেকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য রাজনীতির উত্তাল সাগরে আশার তরণী ভাসিয়ে প্রচ- ব্যস্ত সময় পার করছিলেন বঙ্গবন্ধু। দেশের তরুণ প্রজন্মের নিউরনজুড়ে তখন মুক্তির স্বপ্ন ডানা মেলতে শুরু করেছিল। ঠিক এরকম একটি সময়ে ছোট্ট রাসেলের মুখেও আধো আধো বুলি ফুটতে শুরু করে।

১৯৬৬ সালে বাঙালির মুক্তির সনদ ছয় দফা ঘোষণা করেন বঙ্গবন্ধু। এরপর দেশের প্রতিটি আনাচে-কানাচে গণমানুষের কাছে গিয়ে বোঝাতে থাকেন সোনার বাংলা শ্মশান কেন? বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে ছাত্র-শ্রমিক-কৃষকসহ আপামর জনতার বাঁধভাঙ্গা জোয়ার দেখে আতঙ্কিত হয়ে পড়ে পাকিস্তানী সামরিক জান্তা। ৮ মে রাতে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করে দীর্ঘ মেয়াদের জন্য জেলে রাখে তারা। ঘুম থেকে উঠে আর পিতাকে খুঁজে পায় না ছোট্ট রাসেল সোনা।
সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর ছয় দফা সারাদেশের ঝিমিয়ে পড়া মানুষকে জাগিয়ে তুলতে থাকে। অন্যদিকে মায়ের স্নেহের আঁচল ধরে হাঁটি হাঁটি পা পা শুরু করে প্রাণচঞ্চল রাসেল। অস্থির প্রজাপতির মতো এঘর-ওঘর ছুটে বেড়াতে শুরু করে সে। বড় বোন শেখ হাসিনা ততদিনে ইন্টারমিডিয়েট গভর্নমেন্ট গার্লস কলেজ ছাত্র সংসদের নির্বাচিত ভিপি এবং ছাত্রলীগ নেত্রী হিসেবে প্রতিষ্ঠা পান। কিন্তু ছোট্ট রাসেল কী আর অত বোঝে। রাসেলের কাছে তিনি শুধুই হাসু আপা। তাই বড় আপার লম্বা দোদুল বেণী ধরে শিশু রাসেল মাঝে মাঝেই খেলায় মেতে ওঠে। পিতার অবর্তমানে পিতৃস্নেহবঞ্চিত রাসেল নিজের আম্মাকেই আব্বা বলে ডাকতে শুরু করেছিল। কী নিদারুণ এক শোকাবহ শৈশব! বঙ্গবন্ধু তাঁর কারাগারের রোজনামচা গ্রন্থে শিশু রাসেলের স্মৃতি নিয়ে বিস্তারিত লিখেছেন। রাসেলকে নিয়ে কারাগারের রোজনামচার ২৭ এবং ২৮ মে ১৯৬৭ সালের স্মৃতিচারণায় বঙ্গবন্ধু লিখেছেন, … আড়াই বৎসরের ছেলে আমাকে বলছে ৬ দফা মানতে হবে- সংগ্রাম, সংগ্রাম চলবে চলবে….. ভাঙা ভাঙা করে বলে, কী মিষ্টি শোনায়। জিজ্ঞাসা করলাম, ও শিখল কোথা থেকে। রেণু বলল, বাসায় সভা হয়েছে। তখন কর্মীরা বলেছিল, তাই শিখেছে।
এর মধ্যেই জাতীয় নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন বঙ্গবন্ধু। মা ফজিলাতুন নেছা শেখ রাসেলকে ভর্তি করে দেন শিশুশ্রেণিতে। ৭০-এর নির্বাচনে বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগকে নৌকা মার্কায় একচেটিয়া ভোট দেয় জনগণ। কিন্তু পাকিস্তানীরা মেতে ওঠে নতুন ষড়যন্ত্রে। অগ্নিস্ফুলিঙ্গ হয়ে ওঠে সারাদেশ। বঙ্গবন্ধুর বাড়িকে ঘিরে হাজার হাজার মানুষ স্লোগান দিতে থাকে। ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে এসব দেখতে দেখতে স্লোগান শিখে ফেলে ছোট্ট রাসেলও। ১৯৭১ সালের ২৩ মার্চ বঙ্গবন্ধু নিজ বাসভবনে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। তা দেখে নিজের সাইকেলেও একটা ছোট পতাকা লাগিয়ে নেয় রাসেল। জনতার কণ্ঠে কণ্ঠ মিলিয়ে সেও স্লোগান তোলেÑ জয়য়য় বাংলা……….
২৬ মার্চ প্রথম প্রহরে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণার পর তাঁকে গ্রেফতার করে পাকিস্তানীরা। ধানম-ির ১৮ নম্বর সড়কের একটি বাড়িতে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা, তার অন্তঃসত্ত্বা কন্যা শেখ হাসিনা, শেখ রেহানা, সাড়ে ছয় বছরের শিশু শেখ রাসেলকে করা হয় গৃহবন্দি। মায়ের কোলে মাথা রেখে খালি মেঝেতে শুয়ে ঘুমিয়ে পড়ে রাসেল। আকাশে যুদ্ধ বিমানের মহড়া শুরু হলে কানে তুলা গুঁজে রাখত ছোট্ট রাসেল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাঁর আমাদের ছোট্ট রাসেল সোনা গ্রন্থে এ বিষয়ে বিস্তারিত লিখেছেন।
১৯৭১ সালে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’ স্লোগান দিয়ে দীর্ঘ ৯ মাস পাকিস্তানী সামরিক জান্তার বিরুদ্ধে মরণপণ যুদ্ধ করে আপামর বাঙালি। ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় অর্জনের পর ১৭ তারিখ মুুক্ত হয় বঙ্গবন্ধুর পরিবার। ঢাকার রাজপথে জয় বাংলা স্লোগানে কণ্ঠ মিলিয়ে বেরিয়ে পড়ে শিশু রাসেলও।
এরপর দেশে ফিরেই যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশ পুুনর্নির্মাণের কাজে মন দেন বঙ্গবন্ধু। জীবনের সাত বছর পেরিয়ে এই প্রথম পুরো পরিবারের সঙ্গে নিয়মিত সময় কাটানোর অবকাশ পায় শিশু রাসেল। পিতা মুজিবের সৌজন্যে বিশ্বনেতাদের সঙ্গেও করমর্দনের সুযোগ হয় রাসেলের। শিশু রাসেলের আত্মবিশ্বাসী বাচনভঙ্গি, বুদ্ধিদীপ্ত চাহনি ও নির্মল অভিব্যক্তি মুগ্ধ করে তাদের। রাসেলের প্রতিটি নির্ভীক পদচারণায় যেন ফুটে ওঠে বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি। দুর্ভাগ্য, মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত শক্তির বিষাক্ত ষড়যন্ত্রের ছোবলে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোররাতে এই সম্ভাবনাময় দুরন্ত শিশুও রক্তাক্ত হয়ে যায়। রাতের শিউলি ভোরের বকুল ঝরে পড়ার মতোই ঘাতকের বুলেটে রক্তের সাগরে ডুবে যায় সবার প্রিয় রাসেল। রাসেলের নির্মম মৃত্যুতে বাকরুদ্ধ হয়ে পড়ে বিশ্বমানবতা। ঘন কুয়াশার চাদরে ঢেকে যায় বাংলার মাঠ-ঘাট-প্রকৃতি। অনাবিল স্বপ্ন নিয়ে যে শিশুটি অকালে হারিয়ে গেল সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তার প্রাণশক্তি যেন ছড়িয়ে পড়ল প্রতিটি শিশুর শৈশবে। একেকটি রক্তিম প্রভাত যেমন জেগে ওঠে ঝাঁক ঝাঁক বিহঙ্গ-কূজনে, তেমনি প্রতিটি বাঙালি শিশুর দামাল দুরন্তপনায় বেঁচে থাকে শিশু রাসেল। এদেশের প্রত্যেক শিশুই বেড়ে উঠুক নির্মল চিত্তে, নিরাপদ পরিবেশে। বিকশিত শৈশব শেষে প্রতিটি শিশুই পরিণত হোক একেকজন দেশপ্রমিক নাগরিক হিসেবে।
লেখক : সংসদ সদস্য, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী