সর্বশেষ সংবাদ: জাতীয় শিক্ষাক্রম অনুসরণ করছে ইবতেদায়ী মাদ্রাসা: শিক্ষামন্ত্রী রূপগঞ্জে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় যুবককে কুপিয়ে জখম করেছে কিশোর গ্যাং সদস্যরা সাবেক প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ কানাডা-আমিরাতে ঢুকতে না পেরে ফিরে আসছেন ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে ——- তারা‌বো পৌরসভার মেয়র হা‌সিনা গাজী সোনারগাওঁয়ের সাদিপুর ইউ,পিতে ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০৪ পরিবহন চাঁদাবাজ গ্রেফতার রূপগঞ্জে পুলিশ পরিদর্শকসহ ব্যবসায়ীকে হানজালা বাহিনীর হুমকি, ইটপাটকেল নিক্ষেপে দুই পুলিশ সদস্য আহত রূপগঞ্জে মন্ত্রীর পক্ষে ছাত্রলীগ নেতারদের বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হলেন আহমদে জামাল ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই দেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু

সকল শিরোনাম

জ্ঞানপাপীরা পকেট ভরে : দেশীয় শিক্ষা রসাতলে বাণিজ্যমেলার মেলার বাহিরে ইজারাবিহীন হোটেলের ছড়াছড়ি  : মেলার প্রবেশ সড়ক ঢাকা বাইপাসে ১৭ কিলোমিটার যানজট ;  ভেতরে ক্রেতাশুন্য প্যাভিলিয়ন সুশাসন গণমাধ্যম এবং কিছু কথা রাজনৈতিক সংঘাত বনাম জনসমাগমের রাজনীতি!! ব্রাজিল খেলায় সুনামি বইয়ে দিল : প্রতিপক্ষের বুকে কাঁপুনি শুরু বঙ্গবন্ধু টানেলের আংশিক খুলে দেওয়া হবে এ মাসেই ডিসেম্বরে ভারতের বিদ্যুৎ মিলবে বাংলাদেশে ১১ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা জাকারবার্গের মিয়ানমারে উপর নিষেধাজ্ঞা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হোন শর্ত ছাড়াই বাংলাদেশকে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে আইএমএফ সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ স্থগিত কাতার বিশ্বকাপ : কন্টেইনারে রাতযাপনে গুনতে হবে ২১ হাজার টাকা ঋণের টাকায় দামি গাড়ি! পৃথিবীর তাপ রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে ১৫ নভেম্বর বিশ্বের জনসংখ্যা হবে ৮০০ কোটি আর্জেন্টিনা উগ্র ফুটবল সমর্থকগোষ্ঠী : বিশ্বকাপে ৬ হাজার আর্জেন্টাইন সমর্থক নিষিদ্ধ ২৫ কেজি সোনা নিলামে তুলবে বাংলাদেশ ব্যাংক খেলা যেন হয় শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ ডিএসইর মানবসম্পদ নীতি নিয়ে বৈঠক ডেকেছে বিএসইসি ঋণ পাচ্ছে বাংলাদেশ যুদ্ধ হয়ে যাক একটা.. দীর্ঘদিন পর রাজনৈতিক সমাবেশে আসছেন প্রধানমন্ত্রী টাকা যেন একবারেই মূল্যহীন : ৫০ বছরে পণ্যমূল্য বেড়েছে ৮০ গুণ যৌন হয়রানি প্রতিকার কোথায়?

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

সাভারের ১৯ ট্যানারি বন্ধ হচ্ছে খুলনায় শুক্রবার থেকে বাস ধর্মঘট স্কুলছাত্রীকে হাত পা বেঁধে ধর্ষণ : ভিডিও ভাইরাল গাছ কেটে সাবার জাহাঙ্গীরনগরে সাংবাদিক নির্যাতন : ১১ ছাত্র বহিষ্কার বরিশালে তরুণীকে ধর্ষণ : এসআই গ্রেপ্তার প্রতিবাদ করায় বাস থেকে যাত্রীকে ফেলে হত্যা সরকারের এ মেয়াদে সার্বজনীন পেনশন চালু নিয়ে সংশয় আগুন নিয়ে খেলার পরিণতি শুভ হবে না: কাদের মাকে বাঁচাতে লঞ্চ থেকে নদীতে ঝাঁপ: যুবকের লাশ উদ্ধার ১১৬৮ নমুনায় ৮৮ আক্রান্ত ওবায়দুল কাদেরের ভাই কাদের মির্জা জয়ী স্বামীর প্ররোচনায় স্ত্রীর আত্মহত্যা হোটেলে আটকে রেখে তরুণীকে ২ বন্ধুর পালাক্রমে ধর্ষণ ডেমরায় চাদাঁ না দেয়ায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ফুচকা কারখানা ভাংচুর ও লুটপাট

সরকারের এ মেয়াদে সার্বজনীন পেনশন চালু নিয়ে সংশয়

| ২৯ আশ্বিন ১৪২৯ | Friday, October 14, 2022

---সবার জন্য পেনশন আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন পায় গত জুন মাসে। এর পর প্রথা অনুযায়ী প্রস্তাবিত আইনটি যাচাই-বাছাইয়ের জন্য পাঠানো হয় অর্থমন্ত্রণালয়-সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে। কিন্তু চার মাস পার হয়ে গেলেও এই কমিটি কোনো বৈঠকই করেনি। সহসা বৈঠকে বসে কমিটি এ নিয়ে আলোচনা করবে-এমন আভাসও মেলেনি সংশ্লিষ্টদের মুখ থেকে। ফলে বর্তমান সরকারের অত্যন্ত জনপ্রিয় ও আলোচিত কর্মসূচি সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা কবে বাস্তব রূপ লাভ করবে, তা নিশ্চিত করে কিছু বলা যাচ্ছে না।

এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবার জন্য পেনশন ব্যবস্থার প্রস্তাবে সম্মতি দেয়ার পর অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আগামী ২০২২-২৩ অর্থবছর থেকে এটি চালু হবে। কিন্তু এই অর্থবছরের সাড়ে তিন মাস পার হতে চলল, কিন্তু কাজের কোনো অগ্রগতি নেই। যে ভাবে কাজ চলছে, তাতে ধারণা করা হচ্ছে, বর্তমান সরকারের মেয়াদে এটি আর আলোর মুখ দেখছে না।

দেশের বেসরকারি পর্যায়ের সব মানুষ পেনশনের আওতায় আসবেন। অর্থাৎ যাদের পেনশনের প্রিমিয়াম দেয়ার মতো ক্ষমতা নেই তাদেরও পেনশনের আওতায় আনা হচ্ছে- এমন বিধান রেখে ‘সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থাপনা আইন, ২০২২’-এর খসড়ায় মন্ত্রিসভা অনুমোদন দেয় গত ২১ জুন।

সরকারি চাকরিজীবীরা এই আইনের আওতায় পড়বেন না। কারণ, চাকরি শেষে তারা পেনশন পাচ্ছেন। এর আগে গত এপ্রিল মাসে প্রস্তাবিত খসড়া আইনের গেজেট প্রকাশ করে অর্থমন্ত্রণালয়।

নতুন  আইনে ‘জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ’ গঠনের কথা বলা আছে। এতে একজন নির্বাহী চেয়ারম্যান থাকবেন এবং চারজন সদস্য নিয়ে জাতীয় পেনশন কর্তৃপক্ষ গঠিত হবে। অর্থমন্ত্রীকে চেয়ারম্যান করে ১৫ সদস্যের একটা পরিচালনা পর্ষদ থাকবে। প্রস্তাবিত আইন কার্যকর হলে আমৃত্যু পেনশন পাবেন সুবিধাভোগীরা। দেশের নাগরিকদের মধ্যে ১৮ থেকে ৬০ বছর পর্যন্ত নির্ধারিত প্রিমিয়াম জমা দিলে ৬০ বছরের পর থেকে পেনশন সুবিধা পাবেন। পেনশন পেতে কমপক্ষে ১০ বছর নিয়মিত প্রিমিয়াম দিতে হবে। জানা যায়, আইনটি জাতীয় সংসদে পাস হলে বিধি দ্বারা নির্ধারণ করা হবে এর সুযোগ-সুবিধা। এতে প্রবাসীদেরও পেনশন দেয়ার ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অর্থমন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা ‍ দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘অর্থমন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটি এ বিষয়ে তাদের মতামত দেয়ার পর আইনটি পাসের জন্য জাতীয় সংসদে উপস্থাপন করা হবে। সংসদে পাস হলে তারপর সম্মতির জন্য মাননীয় রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো হবে। তিনি (রাষ্টপ্রতি) স্বাক্ষর করলে এটি বিল আকারে প্রকাশ করা হবে।’

জাতীয় সংসদে খসড়া আইনটি পাস হওয়ার পরই পেনশন কর্তৃপক্ষের জন্য একজন চেয়ারম্যান নিয়োগ দেবে সরকার। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলোচনা করে চেয়ারম্যান কর্তৃপক্ষের জন্য চারজন সদস্য নিয়োগ দেবেন। পেনশন কর্তৃপক্ষ কীভাবে পরিচালিত হবে সে বিষয়ে বিধি তৈরি করবেন নিয়োগ পাওয়া কর্মকর্তারা। মূলত কর্তৃপক্ষ গঠনের মাধ্যমেই সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হবে।

ভারতে সবার জন্য পেনশন চালু হয় ২০০৩ সালে। এর ১০ বছর পর এর আংশিক বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

সার্বজনীন পেনশনের খসড়া আইনের ওপর কবে মতামত দেয়া হবে জানতে চাইলে অর্থমন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত জাতীয় সংসদের স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাছান মাহমুদ আলী দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘আমরা এখনো মিটিং ডাকিনি। যখন মিটিং হবে তখন বলতে পারব।’

কবে বৈঠক হবে –এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বলতে পারব না।’

তবে অর্থমন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য সাবেক চিফ  হুইপ আব্দুস শহীদ দুঃখ করে দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘যতগুলো কমিটি আছে তার মধ্যে আমাদের কমিটিই সবচেয়ে কম মিটিং করে।’

এর কারণ কী জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রশ্নটা কমিটির চেয়ারম্যান ও অর্থমন্ত্রীকে জিজ্ঞেস করেন। তারাই ভালো উত্তর দিতে পারবেন। আমাদের না ডাকলে কী করে মতামত দেব।’

ক্ষমতাসীন দলের অভিজ্ঞ এই পার্লামেন্টারিয়ান মনে করেন, সবার জন্য পেনশনব্যবস্থা খুবই ভালো উদ্যোগ। খসড়া আইনে কী আছে তার ভালো-মন্দ দেখতে হবে। এ জন্য পড়াশোনা করতে হবে। তারপর মতামত দিতে হবে।

‘এটি যতদ্রুত কার্যকর করা যায় ততই দেশের জন্য মঙ্গল। কারণ, সবাই এর সুবিধা পাবে।’

সবার জন্য পেনশন ব্যবস্থা চালুর প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে  মৌলভীবাজার-৪ আসন থেকে টানা ছয়বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য আব্দুস শহীদ আরও বলেন, ‘মানুষ যখন কর্মহীন হয়ে পড়ে, শারীরিক দুরবস্থায় থাকে, তখন আর কাজ করতে পারে না। জীবনযাপনের জন্য তাকে নির্ভরশীল হতে হয়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, ছেলেমেয়েরা বাবা-মাকে দেখে না। তখন জীবনযাপন কষ্ট হয়ে পড়ে। পেনশন পেলে তাদের উপকার হবে। এ জন্য আমি মনে করি, সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালু করা সময়ের দাবি।’

প্রস্তাবিত খসড়া আইনে বলা আছে, পেনশনের বিপরীতে প্রিমিয়ামের একাধিক স্তর থাকবে। যিনি বেশি প্রিমিয়াম দেবেন তার পেনশন বেশি হবে। পেনশনারদের কেউ ৬০ বছর পর্যন্ত প্রিমিয়াম দেয়ার পরপরই মারা গেলে তার নমিনি প্রয়াত পেনশনারের ৭৫ বছর বয়স পর্যন্ত পেনশন পাবেন। প্রিমিয়ামের পরিমাণ কী রকম হবে তা বিধির মধ্যে উল্লেখ থাকবে।

একজন নাগরিক ১৮ বছর থেকে পেনশনের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর সরকারি চাকরিতে ঢুকলে তিনি সার্বজনীন পেনশন তহবিলের সমুদয় প্রাপ্য টাকা এককালীন পেয়ে যাবেন। এরপর তিনি সরকারি চাকরির পেনশন নিয়মে ঢুকে যাবেন। কেউ ৬০ বছরের আগে মারা গেলে তার নমিনিরাও নির্ধারিত হিসাব অনুযায়ী এককালীন টাকা পাবেন।

সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা চালুর প্রস্তাব বর্তমান সরকারের নির্বাচনী অঙ্গীকারের একটি অন্যতম। প্রয়াত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণায় সার্বজনীন পেনশনের প্রস্তাব প্রথম তুলেছিলেন।

যে স্বপ্নের কথা বলেছিলেন মুহিত, এর বাস্তবায়ন নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছিলেন। সমালোচকরা বলেছিলেন, বাংলাদেশের জন্য এ ধরনের প্রকল্প কার্যকর করা সম্ভব নয়। এটি উচ্চাভিলাষী।

তবে এ ব্যাপারে সরকারের কাজ যে সবার অগোচরে এগিয়ে গেছে, সে বিষয়টি স্পষ্ট হলো গত ফেব্রুয়ারির এক অনুষ্ঠানে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে সেদিন সার্বজনীন পেনশন ব্যবস্থা প্রবর্তন বিষয়ে একটি উপস্থাপনা দেয় অর্থ বিভাগ।

এরপর সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে এ কথা জানান অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। মূলত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে মুহিতের সেই স্বপ্ন বাস্তব রূপ দিতে চেয়েছিল সরকার। কিন্তু প্রয়াত মুহিতের সেই স্বপ্ন কবে বাস্তবায়ন হবে, সেটিই এখন বড় প্রশ্ন।

খসড়া আইনের উল্লেখযোগ্য দিক

পেনশনের জন্য নির্ধারিত বয়সসীমা (৬০ বছর) পূর্তিতে পেনশন তহবিলে পুঞ্জিভূত লভ্যাংশসহ জমার বিপরীতে নির্ধারিত হারে পেনশন প্রদেয় হবে। পেনশনাররা আজীবন অর্থাৎ মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত পেনশন সুবিধা ভোগ করবেন। নিবন্ধিত চাঁদা জমাকারী পেনশনে থাকাকালীন ৭৫ বছর পূর্ণ হওয়ার পূর্বে মৃত্যুবরণ করলে জমাকারীর নমিনি অবশিষ্ট সময়কালের (মূল জমাকারীর বয়স ৭৫ বছর পর্যন্ত) জন্য মাসিক পেনশন প্রাপ্য হবেন। পেনশন স্কীমে জমাকরা অর্থ কোনো পর্যায়ে এককালীন উত্তোলনের সুযোগ থাকবে না। তবে আবেদনের প্রেক্ষিতে জমাকরা অর্থের সর্বোচ্চ ৫০ শতাংশ ঋণ হিসেবে উত্তোলন করা যাবে যা সুদসহ পরিশোধ করতে হবে। কমপক্ষে ১০ বছর চাঁদা দেওয়ার পূর্বে নিবন্ধিত চাঁদা দেওয়া ব্যক্তি মারা গেলে জমাকৃত অর্থ মুনাফাসহ তাঁর নমিনিকে ফেরত দেওয়া হবে।

পেনশনের জন্য নির্ধারিত চাঁদা বিনিয়োগ হিসেবে গণ্য করে কর রেয়াতের জন্য বিবেচিত হবে এবং মাসিক পেনশন বাবদ প্রাপ্ত অর্থ আয়কর মুক্ত থাকবে। এ ব্যবস্থা স্থানান্তরযোগ্য ও সহজগম্য; অর্থাৎ কর্মী চাকরি পরিবর্তন বা স্থান পরিবর্তন করলেও তার অবসর হিসাবের স্থিতি, চাঁদা দেওয়া ও অবসর সুবিধা অব্যাহত থাকবে। নিম্ন আয়সীমার নিচের নাগরিকদের ক্ষেত্রে পেনশন স্কীমে মাসিক চাঁদার একটি অংশ সরকার অনুদান হিসেবে দিতে পারে। পেনশন কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের ব্যয় সরকার নির্বাহ করবে। পেনশন কর্তৃপক্ষ ফান্ডে জমাকৃত টাকা নির্ধারিত গাইডলাইন অনুযায়ী বিনিয়োগ করবে (সর্বোচ্চ আর্থিক রিটার্ন নিশ্চিতকরণে)।

আবু কাওসার (দৈনিক বাংলা)