সর্বশেষ সংবাদ: জাতীয় শিক্ষাক্রম অনুসরণ করছে ইবতেদায়ী মাদ্রাসা: শিক্ষামন্ত্রী রূপগঞ্জে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় যুবককে কুপিয়ে জখম করেছে কিশোর গ্যাং সদস্যরা সাবেক প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ কানাডা-আমিরাতে ঢুকতে না পেরে ফিরে আসছেন ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে ——- তারা‌বো পৌরসভার মেয়র হা‌সিনা গাজী সোনারগাওঁয়ের সাদিপুর ইউ,পিতে ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০৪ পরিবহন চাঁদাবাজ গ্রেফতার রূপগঞ্জে পুলিশ পরিদর্শকসহ ব্যবসায়ীকে হানজালা বাহিনীর হুমকি, ইটপাটকেল নিক্ষেপে দুই পুলিশ সদস্য আহত রূপগঞ্জে মন্ত্রীর পক্ষে ছাত্রলীগ নেতারদের বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হলেন আহমদে জামাল ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই দেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু

সকল শিরোনাম

জ্ঞানপাপীরা পকেট ভরে : দেশীয় শিক্ষা রসাতলে বাণিজ্যমেলার মেলার বাহিরে ইজারাবিহীন হোটেলের ছড়াছড়ি  : মেলার প্রবেশ সড়ক ঢাকা বাইপাসে ১৭ কিলোমিটার যানজট ;  ভেতরে ক্রেতাশুন্য প্যাভিলিয়ন সুশাসন গণমাধ্যম এবং কিছু কথা রাজনৈতিক সংঘাত বনাম জনসমাগমের রাজনীতি!! ব্রাজিল খেলায় সুনামি বইয়ে দিল : প্রতিপক্ষের বুকে কাঁপুনি শুরু বঙ্গবন্ধু টানেলের আংশিক খুলে দেওয়া হবে এ মাসেই ডিসেম্বরে ভারতের বিদ্যুৎ মিলবে বাংলাদেশে ১১ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা জাকারবার্গের মিয়ানমারে উপর নিষেধাজ্ঞা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হোন শর্ত ছাড়াই বাংলাদেশকে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে আইএমএফ সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ স্থগিত কাতার বিশ্বকাপ : কন্টেইনারে রাতযাপনে গুনতে হবে ২১ হাজার টাকা ঋণের টাকায় দামি গাড়ি! পৃথিবীর তাপ রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে ১৫ নভেম্বর বিশ্বের জনসংখ্যা হবে ৮০০ কোটি আর্জেন্টিনা উগ্র ফুটবল সমর্থকগোষ্ঠী : বিশ্বকাপে ৬ হাজার আর্জেন্টাইন সমর্থক নিষিদ্ধ ২৫ কেজি সোনা নিলামে তুলবে বাংলাদেশ ব্যাংক খেলা যেন হয় শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ ডিএসইর মানবসম্পদ নীতি নিয়ে বৈঠক ডেকেছে বিএসইসি ঋণ পাচ্ছে বাংলাদেশ যুদ্ধ হয়ে যাক একটা.. দীর্ঘদিন পর রাজনৈতিক সমাবেশে আসছেন প্রধানমন্ত্রী টাকা যেন একবারেই মূল্যহীন : ৫০ বছরে পণ্যমূল্য বেড়েছে ৮০ গুণ যৌন হয়রানি প্রতিকার কোথায়?

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

জ্ঞানপাপীরা পকেট ভরে : দেশীয় শিক্ষা রসাতলে খেলা যেন হয় শান্তিপূর্ণ ও নিরপেক্ষ যৌন হয়রানি প্রতিকার কোথায়? কাদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ হোক বাংলাদেশের আমলাতন্ত্র পুরোপুরি দুর্নীতিগ্রস্ত চলমান বিক্ষোভে ইরানের ভবিষ্যৎ বার্তা যুদ্ধ বন্ধ না হলে মন্দাও বন্ধ হবে না দুরন্ত নির্ভীক বিদ্যুত খাত বৈশ্বিক সঙ্কট বর্তমান বাস্তবতা হত্যা-হামলা-রক্তাক্ত কেন ঘটবে? দুর্নীতি ও অনিয়ম বন্ধ করতে হবে টেকসই ইলেকট্রনিকস শিল্পে পরিবেশ প্রকৌশল মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের রাজনীতি বনাম বিরোধী রাজনীতি ‘‘মাদক ও মাদকাসক্তি নিয়ন্ত্রনে সর্বাত্তক প্রয়াস প্রয়োজন’’ বাংলাদেশে ভেজালমুক্ত খাবার প্রাপ্তি কঠিন কেন?

টেকসই ইলেকট্রনিকস শিল্পে পরিবেশ প্রকৌশল

| ২৮ আশ্বিন ১৪২৯ | Thursday, October 13, 2022

অনন্যা রহমান : টেকসই উন্নয়ন এখনও খুব নতুন, উদীয়মান ধারণা। টেকসই উন্নয়ন আনতে আমাদের শিল্প খাতে পরিবেশ প্রকৌশলবিদ্যা কাজে লাগাতে হবে। টেকসই ইলেকট্রনিকস আমাদেরকে ডিভাইস, অবকাঠামো এবং পরিষেবাগুলোর প্রতিকূল জীবনচক্রের প্রভাব কমিয়ে প্রজন্মের পর প্রজন্ম ধরে মানবস্বাস্থ্য, মঙ্গল এবং পরিবেশ রক্ষা ও উন্নত করতে সক্ষম করবে। আর এই টেকসই ইলেকট্রনিকস উদ্ভাবনের জন্য প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে পরিবেশ প্রকৌশলবিদ্যা। ইলেকট্রনিক বর্জ্য বা ই-বর্জ্য বলতে পরিত্যক্ত বৈদ্যুতিক বা ইলেকট্রনিক সরঞ্জাম বা পরিত্যক্ত যন্ত্রপাতি বোঝায়। এগুলো মূলত ভোক্তার বাসাবাড়িতে ব্যবহৃত বৈদ্যুতিক ও ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি, যেমন-ফ্রিজ, ক্যামেরা, মাইক্রোওয়েভ, কাপড় ধোয়া ও শুকানোর যন্ত্র, টেলিভিশন, কম্পিউটার, মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ ইত্যাদি। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে ইলেকট্রনিক বর্জ্যের নিয়মনীতিহীন ব্যবস্থাপনা ও প্রক্রিয়াজাতকরণ থেকে মানবস্বাস্থ্যের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে এবং পরিবেশ দূষণ হতে পারে। এসব যন্ত্রপাতিতে মানবস্বাস্থ্য ও প্রাকৃতিক পরিবেশের জন্য অনেক ক্ষতিকর উপাদান থাকে। ইলেকট্রনিকসে এমন অনেক রাসায়নিক থাকে, যা মানুষের স্বাস্থ্যের সমস্যা সৃষ্টি করে এবং এই ইলেকট্রনিকসগুলো ব্যবহারের পর অবশিষ্টাংশ যা থাকে, ব্যবহার অনুপযুক্ত এবং আবর্জনা হিসেবে কোনো প্রকার পরিশোধন ছাড়াই পরিবেশে নির্গমন করা হয়, তাকেই ই-ওয়েস্ট বলে। এই রাসায়নিকের অনেকগুলো সহজেই পরিবেশে প্রবেশ করে, তা মাটি, জল বা বাতাসের মাধ্যমে। বর্তমানে জীববৈচিত্র্য ও মানবসভ্যতার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে ইলেকট্রনিক বর্জ্য তথা ই-বর্জ্য। গত ১০ বছরে প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়েছে ৩০ থেকে ৪০ গুণ। তথ্যপ্রযুক্তির আধুনিকায়নের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ইলেকট্রনিক পণ্যের ব্যবহার। আয়ুসীমা পার কিংবা বিকল হলে এসব পণ্য পরিণত হয় আবর্জনায়। সারা বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও দুর্ভাবনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে ই-বর্জ্য। বুয়েটের এক গবেষণা তথ্য বলছে, ২০১০ সালে দেশে ই-বর্জ্য উৎপন্ন হয়েছে এক লাখ ৩০ হাজার টন। গেল আট বছরে যা বেড়েছে প্রায় ২০ শতাংশ। পরিমাণ দাঁড়িয়েছে চার লাখ টন। বাংলাদেশ ইলেকট্রনিকস মার্চেন্ডাইজ ম্যানুফ্যাকচার অ্যাসোসিয়েশনের তথ্যমতে, আমাদের দেশে প্রতি বছর ৩২ কোটি টন ইলেকট্রনিক পণ্য ব্যবহার করা হয়। প্রতি বছর ৫০ হাজারের মতো কম্পিউটার আমদানি করা হয়। ফলে এটা সহজেই অনুমেয় এসব পণ্য থেকে কী পরিমাণ ই-বর্জ্য তৈরি হয়। বেসরকারি সংস্থা এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশনের (ইএসডিও) গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতি বছর দেশে প্রায় ৪ লাখ টন ই-বর্জ্য উৎপাদিত হয়। ২০২৩ সালে এটি দাঁড়াবে প্রায় ১২ লাখ টন।  প্রচুর ই-বর্জ্য তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে রপ্তানি করা হয়, যেমন চীন এবং ভারত, যেখানে বর্জ্য একটি ল্যান্ডফিলে রাখা হয় এবং রাসায়নিকগুলো পরিবেশে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়। ২০১১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ই-বর্জ্যের মাত্র ২৫ শতাংশ প্রকৃতপক্ষে পুনর্ব্যবহৃত হয়েছিল। বাংলাদেশ প্রতি বছর ৩ এমএমটি ই-বর্জ্য উৎপন্ন করে। আগামী বছরগুলোতে জিওবি কর্তৃক গৃহীত ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ প্রকল্প (আজিজ, ২০২০) এবং বাংলাদেশে আধুনিক প্রযুক্তির সহজলভ্যতার কারণে ই-পণ্যের ব্যবহার বাড়বে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি বৃহত্তর ই-বর্জ্য উৎপাদনের সঙ্গে মিলিত হবে। বর্তমানে বাংলাদেশে ই-বর্জ্য উৎপাদনের বার্ষিক হার ৩০ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। সেল/মোবাইল ফোন একাই ১০ দশমিক ৫ কেজি টন ই-বর্জ্য দেয়, প্রায় ২৯৬,৩০৬ ইউনিট টিভি সেট ট্র্যাশে পরিণত হয় এবং ১ দশমিক ৭ লাখ টন ই-বর্জ্য তৈরি করে, আর শিপব্রেকিং ইয়ার্ডগুলো প্রতি বছর ২৫ লাখ টন ই-বর্জ্য তৈরি করে স্বাধীনতার ৪০ বছর পর, বাংলাদেশ ২০১১ সালে ‘ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিধিমালা’-এর প্রথম খসড়া সংশোধন করে। খসড়াটিতে বিভিন্ন আইন অন্তর্ভুক্ত ছিল, যেমন-জাহাজ ভাঙার নিয়ম, পরিবেশ সংরক্ষণ আইন, চিকিৎসা বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিধি, সরকারি থ্রি-আর বিধি এবং ব্যবস্থাপনা বিধি। বিপজ্জনক বর্জ্য (ই-বর্জ্য) ব্যবস্থাপনা বিধিমালা, ২০২১ (ক্যাংগো, ২০২১) ঘোষণার মাধ্যমে ১০ জুন, ২০২১ তারিখে বাংলাদেশ পরিবেশ সুরক্ষা আইন-৯৫ আপডেট করা হয়েছিল। যাই হোক, আইনটির বাস্তবায়ন দক্ষতার সঙ্গে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় না, যা বাংলাদেশে ই-বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রক্রিয়ার যথাযথ প্রতিষ্ঠাকে বাধাগ্রস্ত করে।

পরিবেশগত  প্রকৌশলবিদ্যা ব্যবহার করে, যেমন গ্রিন ইঞ্জিনিয়ারিং, রাসায়নিকগুলোকে প্রথমে ইলেকট্রনিকসে প্রবেশ করা থেকে প্রতিরোধ করা যেতে পারে বা একটি পণ্য তার জীবনচক্রের শেষের দিকে পৌঁছে গেলে সঠিকভাবে সরানো যেতে পারে। গ্রিন ইঞ্জিনিয়ারিং হলো টেকসই উপকরণ এবং পদ্ধতি ব্যবহার করে পণ্য তৈরি করার প্রক্রিয়া, যা দীর্ঘ সময়ের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে এবং আলাদা করে নিয়ে পুনরায় ব্যবহার করা যেতে পারে; শেষ পর্যন্ত প্রযুক্তি নির্মাণ এবং ব্যবহার করার একটি টেকসই উপায় উৎসাহিত করা। গ্রিন ইঞ্জিনিয়ারিং বর্জ্য এবং বিপজ্জনক পদার্থের সমাধান খুঁজে বের করার জন্য কাজ করে, যা আজ প্রযুক্তির নির্মাণে প্রায়শই ব্যবহৃত হয়। সবুজ প্রকৌশলের লক্ষ্য হলো এমন সামগ্রী ব্যবহার করা, যা ‘মানুষের স্বাস্থ্য এবং মঙ্গল রক্ষা করার সঙ্গে সঙ্গে প্রাকৃতিক বাস্তুতন্ত্রকে সংরক্ষণ এবং উন্নত করবে’। দক্ষ প্রকৌশল শুধু একটি কোম্পানির দূষণ এবং বর্জ্য কমাতে পারে না কিন্তু অপ্রয়োজনীয় খরচও কমাতে পারে। তারা তাদের পণ্য উৎপাদন করে এবং তারা চায় যে প্রযুক্তি এগিয়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গ্রিন ইঞ্জিনিয়ারিং আদর্শ হয়ে উঠুক। মানুষ তাদের দৈনন্দিন জীবনের উন্নতির জন্য প্রযুক্তির ওপর নির্ভর করে চলার কারণে সম্প্রদায় এবং বিশ্বজুড়ে সবুজ প্রকৌশলের বিকাশ আরও টেকসই জীবনধারাকে উন্নত করবে। উদাহরণস্বরূপ, জলবিদ্যুৎ প্রকল্পগুলো জল সরবরাহের উন্নতি করতে পারে এবং ক্ষয়প্রাপ্ত জমি ও বাসস্থান পুনরুদ্ধারকে সহজতর করতে পারে। 

প্রাকৃতিক জৈব কম্পোজিটভিত্তিক ইলেকট্রনিকসের প্রজন্ম মূল্যবান ধাতু পুনরুদ্ধার করতে বর্তমানে বৈদ্যুতিক বর্জ্য পুনর্ব্যবহারে ব্যবহৃত ক্ষয়কারী অ্যাসিডের প্রয়োজনীয়তা দূর করবে। উন্নয়নশীল দেশগুলোতে এই রাসায়নিকগুলোর ব্যবহার খুবই সাধারণ, কারণ এটি সস্তা। এই অ্যাসিডগুলো প্রাথমিকভাবে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড এবং নাইট্রিক অ্যাসিড, প্রচুর পরিমাণে লিচিং তৈরি করে, যা দূষণ প্রতিরোধে আরও প্রক্রিয়াকরণের প্রয়োজন হয়। তাদের অনিয়ন্ত্রিত ব্যবহার পরিবেশ এবং এটি ব্যবহারকারী শ্রমিক উভয়ের জন্যই ক্ষতিকর। জৈব উৎপন্ন কম্পোজিটের পুনর্ব্যবহারযোগ্য ধাতু সংগ্রহের জন্য বর্তমান প্লাস্টিকভিত্তিক পুনর্ব্যবহারযোগ্য পদ্ধতিগুলো যথেষ্ট বলে পুনর্ব্যবহারযোগ্য প্রক্রিয়ায় অ্যাসিড হজমের প্রয়োজনীয়তা দূর করে। জৈবশক্তির ব্যবহার অনেক পরিবেশগত সুবিধা হতে পারে যদি সম্পদটি টেকসই উপায়ে উৎপাদিত হয় এবং ব্যবহার করা হয়। যে জমি থেকে জৈবশক্তি উৎপন্ন হয় তা যদি প্রতিস্থাপন করা হয়, তাহলে জৈবশক্তি টেকসইভাবে ব্যবহার করা হয় এবং কার্বন নিঃসৃত হয়ে পরবর্তী প্রজন্মের ক্রমবর্ধমান উদ্ভিদে পুনর্ব্যবহার করা হবে। বায়ো-এনার্জি কতটা পরিমাণে ঈঙ২-এর নেট নির্গমনকে স্থানচ্যুত করতে পারে, তা নির্ভর করবে এটি যে দক্ষতার সঙ্গে উৎপাদন এবং ব্যবহার করা যেতে পারে তার ওপর। বায়ো-এনার্জি প্ল্যান্টে কয়লা এবং তেল প্ল্যান্টের তুলনায় এসওটু কম নির্গমন হয়, তবে তারা আরও বেশি কণা তৈরি করতে পারে। এই নির্গমন নিয়ন্ত্রণযোগ্য কিন্তু তারা উৎপাদন খরচ বাড়ায়।

বড় আকারের জলবিদ্যুতের পরিবেশগত এবং সামাজিক প্রভাবগুলো সাইট নির্দিষ্ট এবং এটি অনেক বিতর্কের বিষয়। বড় আকারের প্রকল্পগুলো স্থানীয় বাস্তুতন্ত্রকে বিরক্ত করতে পারে, জৈবিক বৈচিত্র্য হ্রাস করতে পারে বা জলের গুণমান পরিবর্তন করতে পারে। তারা স্থানীয় জনসংখ্যাকে স্থানচ্যুত করে আর্থ-সামাজিক ক্ষতিও করতে পারে। এসব কারণে উন্নয়নশীল দেশগুলোতে বেশ কিছু প্রকল্প স্থগিত বা ছোট করা হয়েছে; বড় প্রকল্পের জন্য আন্তর্জাতিক ঋণদানকারী প্রতিষ্ঠান ও ব্যাংক থেকে ঋণ পাওয়া আরও কঠিন হয়ে পড়েছে। যদিও এই খারাপ প্রভাবগুলোকে কিছু মাত্রায় পরিচালনা এবং প্রশমিত করা যেতে পারে, তবে তারা সাধারণভাবে জলবিদ্যুতের ভবিষ্যৎকে প্রভাবিত করতে পারে। বর্তমান ডিজিটাল যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে বাংলাদেশেও বৈদ্যুতিক ও ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার অত্যন্ত উদ্বেগজনক হারে দ্রুত বাড়ছে; কিন্তু ব্যবহারের মেয়াদ শেষ হওয়ার পর এগুলো যে পরিমাণ বর্জ্য পদার্থ তৈরি করছে এবং এসব বর্জ্যের যে সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা অত্যন্ত জরুরি, সে বিষয়ে আমাদের ধারণা ও সচেতনতা অত্যন্ত সীমিত। এ ক্ষেত্রে প্রথমেই প্রয়োজন ই-বর্জ্য উৎপাদনের পরিমাণ নিরূপণের ব্যবস্থা। তারপর এগুলোর জন্য স্থায়ী ভাগাড় ও রিসাইক্লিং কারখানা স্থাপন করতে হবে।

লেখক : শিক্ষার্থী, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়