সকল শিরোনাম

সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০৪ পরিবহন চাঁদাবাজ গ্রেফতার রূপগঞ্জে পুলিশ পরিদর্শকসহ ব্যবসায়ীকে হানজালা বাহিনীর হুমকি, ইটপাটকেল নিক্ষেপে দুই পুলিশ সদস্য আহত রূপগঞ্জে মন্ত্রীর পক্ষে ছাত্রলীগ নেতারদের বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হলেন আহমদে জামাল ঢাকায় বিয়ে উৎসব, অংশ নেবেন কারা? ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই দেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু গোটা বিশ্বই ধ্বংস হবে মশা মারার ওষুধ কতটা কার্যকর? সশস্ত্র বিক্ষোভের শঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে সতর্কতা বিটিএমসিতে অনিয়ম ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ওয়ানডে দল ঘোষণা আমাকে বিয়ে করবে? শ্রীলেখা ক্রেডিট কার্ডের সর্বোচ্চ সুদ ২০ শতাংশ নির্ধারণ ১১৬৮ নমুনায় ৮৮ আক্রান্ত করোনা কেড়ে নিল আরও ২১ প্রাণ বার্সেলোনার সভাপতি নির্বাচন স্থগিত ভোটে সক্রিয় ছিল না বিএনপি টাকা যাঁর, টিকা তাঁর এমন যেন না হয়… ওবায়দুল কাদেরের ভাই কাদের মির্জা জয়ী মানুষের দারিদ্র্যের অন্যতম কারণ উপার্জনে সুযোগের সীমাবদ্ধতা আমদানি বৃদ্ধিতে অর্থনীতিতে স্বস্তির ইঙ্গিত তৈরি পোশাকের ক্রেতাদের এগিয়ে আসার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর স্বামীর প্ররোচনায় স্ত্রীর আত্মহত্যা করোনা ভ্যাকসিন জানুয়ারিতেই পাব ॥ স্বাস্থ্যমন্ত্রী হোটেলে আটকে রেখে তরুণীকে ২ বন্ধুর পালাক্রমে ধর্ষণ

এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

আমদানি বৃদ্ধিতে অর্থনীতিতে স্বস্তির ইঙ্গিত তৈরি পোশাকের ক্রেতাদের এগিয়ে আসার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর করোনায় ক্ষুদ্রঋণ : ৩ হাজার কোটির মধ্যে আড়াই মাসে মাত্র ২০ কোটি টাকা বিতরণ জুন থেকেই শ্রমিক ছাঁটাই হতে পারে: রুবানা হক ঘুরে দাঁড়াচ্ছে মোংলা বন্দর করোনায় ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বেকারত্ব চীনে ঈদে খুলছে না ‘বসুন্ধরা সিটি’ ও ‘যমুনা ফিইচার পার্ক’ করোনার প্রভাবে অর্থনীতি নিম্নআয়ের মানুষকে জামানত ছাড়াই ঋণ দেবে সরকার সকল আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ব্যয় কমানোর নির্দেশ ঈদের আগেই আর্থিক সহায়তা পাবেন কর্মহীন মানুষ: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ওয়ারেন বাফেট হারালেন ৫ হাজার কোটি ডলার! লোভের বলি দেশটা… পোশাকশ্রমিকদের এখন ঢাকায় আসার প্রয়োজন নেই : রুবানা হক পুঁজিবাদী ব্যবস্থার অসহায়ত্ব প্রকট হয়েছে

করোনায় ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ বেকারত্ব চীনে

| ২৮ বৈশাখ ১৪২৭ | Monday, May 11, 2020

------নিউজ-বাংলাদেশ ডেস্ক: করোনাভাইরাসের উদ্ভূত পরিস্থিতিতে চীনে বেকারত্ব বেড়ে গত ৪০ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ হয়েছে। গত কয়েক বছরে সেবাখাতে কর্মসংস্থান বাড়ায় চীনে শ্রমবাজারে স্থিতিশীলতা আসে। তবে করোনা মহামারীর কারণে বেকারত্ব বাড়ায় শ্রমবাজার অস্থিতিশীল হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

সোমবার সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানায়, লকডাউন তুলে নেওয়া হলেও এখনো বন্ধ রয়েছে অনেক দোকান ও রেস্তোরাঁ কেননা আগের মতো ক্রেতা নেই। অভিবাসী কর্মীরা কারখানা ফের চালু হওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন কিন্তু পণ্যের বৈশ্বিক চাহিদা কমতে শুরু করায় সেটি পিছিয়ে যাচ্ছে।

মধ্য ফেব্রুয়ারি থেকে অর্থনৈতিক কার্যক্রম শুরুর চেষ্টা করছে চীন। কিন্তু বেশ কয়েকটি খাত পুনরুদ্ধার করা কঠিন হয়ে পড়েছে। গত কয়েক দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো চীনের শ্রমবাজার বিভিন্ন দিক থেকে চাপে রয়েছে। চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে দেশটির অর্থনীতি গত ৪০ বছরের মধ্যে সর্বাধিক সঙ্কোচনের শিকার হয়েছে।

শ্রমবাজারে চলমান সংকটের কারণে বেইজিংয়ের সামাজিক উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা, চলতি দশকে মাথাপিছু দেশজ উৎপাদন (জিডিপি) দ্বিগুণ করার পরিকল্পনা এবং দারিদ্র্য দূর করার লক্ষ্য মুখ থুবড়ে পড়েছে।

গত মাসে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে সাউথওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি অব ফিন্যান্স অ্যান্ড ইকোনমিক্সের দুই অর্থনীতিবিদ উয়াংজুন এবং কিন ফ্যাং বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের বাণিজ্যযুদ্ধের কারণে বেইজিংয়ের অর্থনীতির ওপর চাপ আরও বেড়েছে। পাশাপাশি কর্মসংস্থান পরিস্থিতির ক্রমাগত আরও অবনতি ঘটছে।’

তবে চীনের বেকারত্ব পরিস্থিতির সঠিক চিত্র নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে। সরকার কোনো স্পষ্ট তথ্য দিচ্ছে না যাতে চাকরির বাজারের অবস্থা বোঝা যায়। এছাড়া, অধিকাংশ অর্থনীতিবিদ মনে করছেন, সরকারি তথ্যে বেকারত্বের সঠিক সংখ্যা কমিয়ে দেখানো হতে পারে।

চীনে ১৪ কোটি ৯০ লাখ মানুষের নিজস্ব ব্যবসা রয়েছে এবং অভিবাসী কর্মী আছেন ১৭ কোটি ৪০ লাখ, যারা নিজেদের অঞ্চল ছেড়ে শহরে আসেন কাজ করতে। বেকারত্বের হারে এই দুই ধরনের কর্মীর সঠিক তথ্য উঠে না আসার আশঙ্কা রয়েছে।

২০১৮ সালের আগে বেইজিং একটি পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছিল, যেখানে শহরের সেসব কর্মীর তথ্য ছিল, যারা সরকারি তালিকায় ছিলেন এবং চাকরি হারিয়েছেন। শহরে কাজ করেন কিন্তু স্থানীয় নন, এমন অভিবাসী কর্মীরা চাকরি হারানোর পরও এ পরিসংখ্যানে স্থান পাননি এবং সরকারের সামাজিক সুরক্ষা সহায়তাও তারা পাননি। তাছাড়া, বেকার হিসেবে বিবেচিত হওয়ার জন্য একজন কর্মীর বয়স ১৬ থেকে ৫৯ বছরের মধ্যে হতে হয়।

ফলে সরকারি পরিসংখ্যানে শ্রমবাজারের সঠিক চিত্র উঠে আসে না। ২০০৮-২০০৯ সালের বৈশ্বিক অর্থনৈতিক মন্দায় ২ কোটিরও বেশি অভিবাসী কর্মী চাকরি হারালেও বেকারত্বের হার হিসাবে তাদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি।

২০১৮ সাল থেকে প্রতি মাসে বেকারত্বের হার গণনায় জরিপ করে চীনের জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যুরো (এনবিএস)। এ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ডিসেম্বরে বেকারত্বের হার ছিল ৫ দশমিক ২ শতাংশ, যা ফেব্রুয়ারি মাসে হয় ৬ দশমিক ২ শতাংশ। কিছু অর্থনৈতিক কার্যক্রম ফের শুরু হওয়ায় মার্চে বেকারত্বের হার দাঁড়িয়েছিল ৫ দশমিক ৯ শতাংশ।

১ জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত শহুরে কর্মসংস্থান কমেছে মোট ৬ শতাংশ। এর মানে প্রায় ২ কোটি ৬০ লাখ চাকরি হারিয়ে গেছে।

২০১৯ সালে শহুরে কর্মসংস্থান বেড়েছিল ৮৩ লাখ। কর্মসংস্থান কমার এ হার গত চার দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ।

এনবিএসের হিসাব অনুযায়ী, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে প্রায় ১৮ দশমিক ৩ শতাংশ কর্মী কম বেতন বা বিনা বেতনে ছুটি নিতে বাধ্য হয়েছে।

অন্যদিকে, চীনের ১৪ কোটি ৯০ লাখ স্বনির্ভর ব্যবসায়ীর আয় কমেছে গড়ে ৭ দশমিক ৩ শতাংশ। শহর এলাকায় আয় কমার হার ১২ দশমিক ৬ শতাংশ।

চলতি বছরের শ্রমিক দিবসের ছুটিতে অভ্যন্তরীণ পর্যটন খাতে আয় গত বছরের তুলনায় কমেছে ৬০ শতাংশ। রেস্তরাঁগুলোর আয় অর্ধেক হয়ে গেছে।

অর্থনীতিবিদ ল্যারি হু বলেন, ‘চলতি বছরের শেষে বেকারত্বের হার বেড়ে ৯ দশমিক ৪ শতাংশ পর্যন্ত হতে পারে।’

২০১৯ এর শেষে চীনে শহরে চাকরি ছিল মোট ৪৪ কোটি ২০ লাখ। বেকারত্বের হার গত বছরের সমান রাখতে আরও ৮০ লাখ নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে হতো, যা এখন অসম্ভব।