সর্বশেষ সংবাদ: জাতীয় শিক্ষাক্রম অনুসরণ করছে ইবতেদায়ী মাদ্রাসা: শিক্ষামন্ত্রী রূপগঞ্জে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় যুবককে কুপিয়ে জখম করেছে কিশোর গ্যাং সদস্যরা সাবেক প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মুরাদ কানাডা-আমিরাতে ঢুকতে না পেরে ফিরে আসছেন ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে ——- তারা‌বো পৌরসভার মেয়র হা‌সিনা গাজী সোনারগাওঁয়ের সাদিপুর ইউ,পিতে ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকায় র‌্যাব-১১ এর অভিযানে ০৪ পরিবহন চাঁদাবাজ গ্রেফতার রূপগঞ্জে পুলিশ পরিদর্শকসহ ব্যবসায়ীকে হানজালা বাহিনীর হুমকি, ইটপাটকেল নিক্ষেপে দুই পুলিশ সদস্য আহত রূপগঞ্জে মন্ত্রীর পক্ষে ছাত্রলীগ নেতারদের বিরুদ্ধে আইসিটি আইনে মামলা বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর হলেন আহমদে জামাল ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহেই দেশে ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু

সকল শিরোনাম

বাংলাদেশ অনলাইন মিডিয়া এসোসিয়েশনের সাধারণ সভা : নতুন বছরে সারা দেশে নয়া কমিটির সিদ্ধান্ত জাতীয় স্মৃতিসৌধে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন জয় বাংলা বাংলার জয় জাতীয় সাহিত্য সম্মাননা পেলেন দেশের ৯ গুণী ব্যক্তি কেন এই প্রাকৃতিক বিপর্যয়? ‘কলামিস্ট ফোরাম অব বাংলাদেশ’এর সভাপতি অধ্যাপক ড. আবদুল মান্নান চৌধুরকে; সম্পাদক মীর আব্দুল আলীম ঢাকার রাস্তায় এত ট্র্যাফিক জ্যাম কেন? জ্ঞানপাপীরা পকেট ভরে : দেশীয় শিক্ষা রসাতলে বাণিজ্যমেলার মেলার বাহিরে ইজারাবিহীন হোটেলের ছড়াছড়ি  : মেলার প্রবেশ সড়ক ঢাকা বাইপাসে ১৭ কিলোমিটার যানজট ;  ভেতরে ক্রেতাশুন্য প্যাভিলিয়ন সুশাসন গণমাধ্যম এবং কিছু কথা রাজনৈতিক সংঘাত বনাম জনসমাগমের রাজনীতি!! ব্রাজিল খেলায় সুনামি বইয়ে দিল : প্রতিপক্ষের বুকে কাঁপুনি শুরু বঙ্গবন্ধু টানেলের আংশিক খুলে দেওয়া হবে এ মাসেই ডিসেম্বরে ভারতের বিদ্যুৎ মিলবে বাংলাদেশে ১১ হাজার কর্মী ছাঁটাইয়ের ঘোষণা জাকারবার্গের মিয়ানমারে উপর নিষেধাজ্ঞা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হোন শর্ত ছাড়াই বাংলাদেশকে ৪৫০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে আইএমএফ সরকারি কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণ স্থগিত কাতার বিশ্বকাপ : কন্টেইনারে রাতযাপনে গুনতে হবে ২১ হাজার টাকা ঋণের টাকায় দামি গাড়ি! পৃথিবীর তাপ রেকর্ড পরিমাণ বেড়েছে ১৫ নভেম্বর বিশ্বের জনসংখ্যা হবে ৮০০ কোটি আর্জেন্টিনা উগ্র ফুটবল সমর্থকগোষ্ঠী : বিশ্বকাপে ৬ হাজার আর্জেন্টাইন সমর্থক নিষিদ্ধ ২৫ কেজি সোনা নিলামে তুলবে বাংলাদেশ ব্যাংক

শেয়ারবাজারে ফের বড় দরপতন

| ৪ কার্তিক ১৪২৯ | Wednesday, October 19, 2022

বিশ্ব অর্থনীতি নিয়ে উদ্বেগের মধ্যে আবার ঢালাও দরপতন হলো দেশের শেয়ারবাজারে। স্বল্প মূলধনি কিছু কোম্পানির শেয়ারদর লাফ দিলেও গত কয়েক মাসে লাফিয়ে বাড়ছিল এমন কোম্পানিগুলো দর হারানোয় সূচকের বড় পতন হলো। সূচকের এই পতনে প্রধান ভূমিকায় ছিল তুমুল আলোচিত ওরিয়ন গ্রুপের চার কোম্পানি- যেগুলো গত আগস্ট-সেপ্টেম্বরে সূচক বৃদ্ধিতে ছিল প্রধান ভূমিকায়। সেই সঙ্গে বড় মূলধনি কোম্পানি বেক্সিমকো লিমিটেডের দরপতনও এতে ভূমিকা রেখেছে । সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস রোববার ১৫ পয়েন্টের পর দ্বিতীয় কর্মদিবসে সূচক কমল ৬৫ পয়েন্ট। কিছুটা কমল লেনদেনও। বড় পতনের এই দিনে কেবল ২৫টি কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে, কমেছে ১৫৩টির আর আগের দিনের দরে হাতবদল হয়েছে ১৮২টি কোম্পানির, সেগুলোর সিংহভাগই লেনদেন হচ্ছে বেঁধে দেয়া সর্বনিম্ন দর বা ফ্লোর প্রাইসে। লেনদেনও কিছুটা কমেছে। দিন শেষে হাতবদল হয়েছে ১ হাজার ২৯৭ কোটি ৮৩ লাখ ১৪ হাজার টাকা, যা আগের দিনের তুলনায় ৪৫ কোটি ২৮ লাখ টাকা কম। রোববার হাতবদল হয়েছিল ১ হাজার ৩৪৩ কোটি ১২ লাখ ৪ হাজার টাকা।

এদিন পতনে থাকা কোম্পানিগুলোর দর এক দিনেই এতটা কমেছে, যা বিনিয়োগকারীদের ব্যাপক আর্থিক ক্ষতির মুখে ফেলেছে। ব্যাংক এশিয়া সিকিউরিটিজের সিইও সুমন দাস দৈনিক বাংলাকে বলেন, ‘স্বল্প মূলধনির দর বাড়ছে, এর দুটি কারণ হতে পারে। প্রথমত, বিএসইসি থেকে পেইড-আপ ক্যাপিটাল বাড়ানোর জন্য বলা হয়েছে, যেটা করার পরিকল্পনা করছে কোম্পানিগুলো। যার কারণে ওই দিকে ধাবিত করছে। আর দ্বিতীয়ত, এসব শেয়ারের দর বাড়ানো সহজ হয়, ফলে যারা ওমুক ভাই, তমুক ভাই ফলো করেন, তারা এসব শেয়ারের পেছনে দৌড়ান, এতেই দর বাড়ে।’

তিনি বলেন, ‘বাজারকে স্বাভাবিকভাবে চলতে দিতে হবে। ফ্লোর প্রাইস বা বিভিন্ন সময় যে ২ বা ৫ শতাংশ সার্কিট ব্রেকার দেয়া হয়েছিল, সেগুলোর খুব বেশি প্রয়োজন ছিল না। সে সময় যদি পড়ত, একটা সময় গিয়ে মানুষ ঠিকই বুঝতে পারত এবং বিনিয়োগে ফিরে আসত। তবে এখন যদি ফ্লোর প্রাইস তুলে নেয়া হয় তাহলে হয়তো আবার মার্কেট ডাউন ট্রেন্ডে চলে যেতে পারে।’

অন্য এক প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘যেগুলো তরতর করে বেড়েছিল, সেগুলো তো কমবে। আবার যেগুলো কারণ ছাড়াই কমে যাবে সেগুলো বাড়বে- এটাই স্বাভাবিক।’

নানা গুজব-গুঞ্জনে কিছু কোম্পানির শেয়ারদর লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছিল, সেগুলোর পতনও হয়েছে সবচেয়ে বেশি। লভ্যাংশ-সংক্রান্ত ঘোষণার কারণে মূল্যসীমা না থাকা দুই কোম্পানি দর হারিয়েছে ১৩ শতাংশের বেশি। কিছুদিন ধরে লাফাচ্ছিল এমন চারটি কোম্পানি দর হারিয়েছে ৯ শতাংশের বেশি। আরও চারটি কোম্পানি দর হারিয়েছে ৮ শতাংশ করে, তিনটি দর হারিয়েছে ৭ শতাংশ করে। আটটি কোম্পানির দর কমেছে ৬ শতাংশের বেশি, ১৩টি কোম্পানির দর কমেছে ৫ শতাংশের বেশি, আরও ৮টির কমেছে ৪ শতাংশের বেশি।

বিপরীতে যেসব কোম্পানির দর বেড়েছে, তার মধ্যে কেবল দুটি করে কোম্পানি আছে, যাদের দর যথাক্রমে ৮, ৭, ৫ ও ৩ শতাংশের বেশি বেড়েছে। চারটি কোম্পানির দর ২ শতাংশের বেশি ও ৭টি দর বেড়েছে ১ শতাংশের বেশি। শীর্ষ দশে থাকা ১০টি কোম্পানির সাতটিই স্বল্প মূলধনি। এর মধ্যে একটির দর ১৬ কর্মদিবসে ১৭৫ টাকা ৯০ পয়সা থেকে হয়েছে ৩৯২ টাকা ৩০ পয়সা।

সূচক পতনে বেশি প্রভাব ওরিয়ন গ্রুপ ও বেক্সিমকোর: তবে দরবৃদ্ধি ও পতনের শীর্ষে থাকা কোম্পানিগুলোর শেয়ার সংখ্যা কম থাকায় এগুলো সূচকে প্রভাব বিস্তার করতে পারে কমই। সূচকের বড় পতন হয়েছে মূলত বেক্সিমকো লিমিটেড, ওরিয়ন গ্রুপের চার কোম্পানি, বড় মূলধনি বহুজাতিক কোম্পানি লাফার্জ সিমেন্ট, হঠাৎ করে লাফাতে থাকা সি পার্ল, জেএমআই হসপিটাল, আইসিবি ও সোনালী পেপারের দরপতনে। বেক্সিমকো লিমিটেডের ৩.৪৪ শতাংশ দরপতনে ৭.৭৪ পয়েন্ট সূচক কমেছে। ওরিয়ন গ্রুপের চার কোম্পানির মধ্যে বিকন ফার্মা ৫.১ পয়েন্ট, ওরিয়ন ফার্মা ৩.৪৮ পয়েন্ট, কোহিনূর কেমিক্যালস ১.৭৫ পয়েন্ট এবং ওরিয়ন ইনফিউশন সূচক কমিয়েছে ১.৪৩ পয়েন্ট। সব মিলিয়ে এই পাঁচটি কোম্পানিই সূচক ফেলেছে ১৯.৫০ পয়েন্ট।

ওরিয়নের চার কোম্পানির চিত্র: এই গ্রুপের চারটি কোম্পানিই ওষুধ ও রসায়ন খাতের। এর মধ্যে সবচেয়ে বড় মূলধনি ওরিয়ন ফার্মা দর হারিয়েছে ৫.৫১ শতাংশ। আগের দিন দর ছিল ১৩৪ টাকা ৩০ পয়সা। ৭ টাকা ৪০ পয়সা কমে দর দাঁড়িয়েছে ১২৬ টাকা ৯০ পয়সায়। গত ২০ কর্মদিবসে এটি কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বনিম্ন দর। গত ১৫ সেপ্টেম্বর কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ১১৬ টাকা ২০ পয়সা, পরে বাড়তে বাড়তে উঠে যায় ১৫৬ টাকা ৫০ পয়সা। শেয়ারদর তরতর করে বাড়তে থাকার সময় লেনদেনও হয়েছে ব্যাপক। এমনও দিন গেছে এক দিনে আড়াই শ কোটি টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে, যা এখন নেমে এসেছে ৫০ কোটির ঘরে। গত ২৮ জুলাই দ্বিতীয়বারের মতো পুঁজিবাজারে ফ্লোর প্রাইস দেয়ার দিন কোম্পানিটির দর ছিল ৭৮ টাকা ৭০ পয়সা। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫.৩৬ শতাংশ দর হারিয়েছে স্বল্প মূলধনি কোহিনূর কেমিক্যালস। আগের দিন দর ছিল ৬৩৭ টাকা। ৩৪ টাকা ২০ পয়সা কমে দর দাঁড়িয়েছে ৬০৩ টাকা ৪০ পয়সা। গত ২৮ জুলাই ফ্লোর প্রাইস দেয়ার দিন কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৩৭৯ টাকা ৯০ পয়সা। সম্প্রতি উঠে যায় ৭৫৭ টাকা ৪০ পয়সায়। এই দরে যারা কিনেছেন, তাদের এখন শেয়ারপ্রতি ১৫০ টাকা হারিয়ে গেছে। এই গ্রুপের সবচেয়ে আলোচিত কোম্পানি ওরিয়ন ইনফিউশন দর হারিয়েছে ৩.৬৮ শতাংশ বা ৩৪ টাকা ৯০ পয়সা। আগের দিন দর ছিল ৯৪৭ টাকা ৯০ পয়সা, দিন শেষে দর হারিয়েছে ৯১৩ টাকা। গত ছয় মাসেরও কম সময়ে কোম্পানিটির শেয়ারদর ১২ গুণেরও বেশি বেড়ে এক হাজার টাকা ছুঁয়ে পরে নামতে শুরু করেছে। গত মে-জুন মাসেও দর ছিল ৮০ টাকার নিচে, রোববার দর এক হাজার টাকা ছুঁয়ে কমে। গত ২৮ জুলাই ফ্লোর প্রাইস দেয়ার দিন কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ১০৪ টাকা ৭০ পয়সা। এভাবে অস্বাভাবিক হারে দর বৃদ্ধির নেপথ্যে কী, তা খুঁজে বের করতে তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষকে খতিয়ে দেখতে বলা হয়েছে, এই দর বৃদ্ধির নেপথ্যে কোনো কারসাজি আছে কি না। গ্রুপের অপর কোম্পানি বিকন ফার্মা দর হারিয়েছে ৩.১৯ শতাংশ বা ১১ টাকা। আগের দিন দর ছিল ৩৪৪ টাকা ৬০ পয়সা, দিন শেষে দাঁড়িয়েছে ৩৩৩ টাকা ৬০ পয়সা। দিনের একপর্যায়ে দর নেমে এসেছিল ২২১ টাকায়। ফ্লোর প্রাইস দেয়ার দিন কোম্পানিটির শেয়ার দর ছিল ২৪০ টাকা ৬০ পয়সা। বাড়তে বাড়তে তা সম্প্রতি উঠে যায় ৩৯৩ টাকা পর্যন্ত। গত তিন বছর ধরেই কোম্পানিটির শেয়ারদর ব্যাপকহারে লাফাচ্ছে। তিন বছর আগেও ২০ টাকার ঘরে লেনদেন হচ্ছিল শেয়ারদর। এভাবে লাফাতে থাকলেও কোম্পানির ব্যাপক আর্থিক উন্নতি হয়েছে- এমন প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে না।

বেক্সিমকোর চার কোম্পানি ও বন্ডের দরে যা হলো: এই গ্রুপের পাঁচ কোম্পানির মধ্যে সবচেয়ে আলোচিত বেক্সিমকো লিমিটেড ৩.৪৪ শতাংশ বা ৪ টাকা ৪০ পয়সা দর হারিয়েছে। আগের দিন দর ছিল ১২৭ টাকা ৮০ পয়সা, দিন শেষে দাঁড়িয়েছে ১২৩ টাকা ৪০ পয়সায়। গত এক বছরে কোম্পানিটির শেয়ারদর অনেকটাই কমেছে। এর আগে এক বছরে বেড়েছে ব্যাপক হারে। ২০২০ সালে ফ্লোর প্রাইস দেয়ার সময় শেয়ারদর ১৩ টাকার ঘরে থাকলেও গত বছর দর ১৯০ টাকা ছাড়িয়ে যায়। কোম্পানিটির শেয়ারদর বাড়ার পাশাপাশি তাদের ব্যবসাও বেড়েছে। তবে গত নভেম্বর থেকে টানা দরপতনের কারণে বিনিয়োগকারীরা বড় লোকসানে আছেন। ফ্লোর প্রাইস দেয়ার দিন কোম্পানিটির শেয়ার দর ১১৪ টাকা ২০ পয়সা। সেখান থেকে দর ১৪৬ টাকা হয়ে যাওয়ার পর বিনিয়োগকারীরা হারিয়ে যাওয়া টাকা ফিরে পাওয়ার আশা করেছিলেন, তবে ২০ সেপ্টেম্বর থেকে দর আবার নিম্নমুখী হয়ে যাওয়ায় সে আশা আর পূরণ হয়নি।

ওরিয়ন গ্রুপের মতো এই গ্রুপের সব কোম্পানি দর হারায়নি। বেক্সিমকো ফার্মার দর এদিন স্রোতের বিপরীতে গিয়ে ১.৩১ শতাংশ বা ২ টাকা ১০ পয়সা বেড়েছে। আগের দিন দর ছিল ১৬০ টাকা ২০ পয়সা, দিন শেষে দাঁড়িয়েছে ১৬২ টাকা ৩০ পয়সা। এই কোম্পানিটির দর গত দুই বছরে অনেকটাই বেড়েছে। ৯০ টাকার কম থেকে বাড়তে বাড়তে গত বছর ২৩৯ টাকা ৪০ পয়সায় উঠে যায়। কিন্তু গত বছরের অক্টোবর থেকে ক্রমাগত দর হারাচ্ছে। গ্রুপের আরেক কোম্পানি আইএফআইসি ব্যাংক ফ্লোর প্রাইস থেকে কিছুটা দূরে অবস্থান করছে। ১০ পয়সা দর হারিয়ে শেয়ারদর এখন ১১ টাকা ৯০ পয়সা। কমতে পারবে বড়জোর আর ৪০ পয়সা। ব্যাংক খাতের যে কোম্পানিটি গত এক বছরে সবচেয়ে বেশি দর হারিয়েছে, তার মধ্যে আছে এটি। গত বছরের নভম্বেরের তৃতীয় সপ্তাহে দর ওঠে ২১ টাকা ৮০ পয়সা। সেখান থেকে প্রায় অর্ধেকে দাঁড়িয়েছে।

আরেক কোম্পানি শাইনপুকুর সিরামিকস ৯০ পয়সা বা ১.৮১ শতাংশ দর হারিয়েছে। আগের দিন দর ছিল ৪৯ টাকা ৬০ পয়সা, দিন শেষে দাঁড়িয়েছে ৪৮ টাকা ৭০ পয়সা। গত এক বছরে গ্রুপের একমাত্র কোম্পানি হিসেবে শেয়ারদর অনেকটাই বেড়েছে। এই সময়ে ২৪ টাকা ৫০ পয়সা থেকে দর ৫৮ টাকা ৯০ পয়সা পর্যন্ত উঠে যায়। এই গ্রুপের গ্রিন সুকুক বন্ড দর হারিয়েছে ১ টাকা। ১০০ টাকা অভিহিত মূল্যের বন্ডের দর আগের দিন ছিল ৮৮ টাকা ৫০ পয়সা, বর্তমান দর ৮৭ টাকা ৫০ পয়সা।

লাফিয়ে উত্থান, ধপাস করে পতন: ৫ কোটির স্বল্পমূলধনি কোম্পানি অ্যাপেক্স ফুডস। গত জুলাইয়ের ২৮ তারিখেও কোম্পানির শেয়ারদর ছিল ১৬৫ টাকা ৯০ পয়সা। সেখান থেকে লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে গতকাল পর্যন্ত শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩১৪ টাকা ৯০ পয়সায়। আজকে লভ্যাংশ ঘোষণার কারণে দরপতন বা বৃদ্ধির সীমা না থাকায় এক দিনেই কমেছে ১৩.৬৯ শতাংশ বা ৪৩ টাকা ১০ পয়সা। বিশ্বের অন্য বাজারে না ঘটলে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে লভ্যাংশ ঘোষণার পরে দর সমন্বয় হতে দেখা যায়। তবে ঘোষিত ২০ শতাংশ বা শেয়ারপ্রতি ২ টাকার বিপরীতে এই পতনকে শুধু দর সংশোধন বলার উপায় নেই। একই অবস্থা ফারইস্ট নিটিংয়ের। কোম্পানির শেয়ারপ্রতি ১ টাকা লভ্যাংশের বিপরীতে এক দিনেই দর কমেছে ১৩.০৪ শতাংশ বা ৩ টাকা। ২৮ জুলাইয়ে ১৭ টাকায় লেনদেনের পর তরতর করে শেয়ারদর বেড়ে ২৯ আগস্ট ২৪ টাকা ৫০ পয়সা লেনদেন হয়। এরপর ওঠানামার মধ্যে থাকলেও গতকাল পর্যন্ত ২৩ টাকায় শেয়ার হাতবদল হয়েছে। একেবারে কম না হলেও ৫৭ কোটি টাকার মূলধনি কোম্পানি বিডি কম। ১২ সেপ্টেম্বরের পর থেকে লাগামহীন ঘোড়ার মতো ছুটছে শেয়ারদর। ওই দিন ৩২ টাকা ১০ পয়সায় লেনদেন হওয়া শেয়ারটি ১২ অক্টোবর ৭৫ টাকা ১০ পয়সায় লেনদেন হয়। সেখান থেকে তিন কর্মদিবসে কমে আজকে শেয়ার হাতবদল হয়েছে ৫৮ টাকা ৯০ পয়সায়। ৩ অক্টোবর নাভানা সিএনজির শেয়ার ২৬ টাকা ৫০ পয়সায় লেনদেনের পর হু হু করে দর বেড়ে বৃহস্পতিবার ৩৫ টাকা ৮০ পয়সায় ঠেকে। এরপর দুই দিনেই কমে দর দাঁড়িয়েছে ৩২ টাকা ২০ পয়সায়। আজকে দর কমেছে একদিনে যতটুকু সম্ভব ততটুকু বা ৯.৫৫ শতাংশ। স্বল্পমূলধনি অ্যাপেক্স স্পিনিংয়ের দর ২৮ জুলাইয় ছিল ১২৮ টাকা ৩০ পয়সা। ৩০ আগস্ট ১৬৪ টাকা ৩০ পয়সায় উঠেছিল। এরপর দরপতন হলেও ১২ অক্টোবর শেয়ার বেচাকেনা হয় ১৫৫ টাকা ৩০ পয়সায়। সেখান থেকে কয়েক দিনেই শেয়ারদর কমে আজ ১৩৯ টাকা ৩০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে। এতে ১৪ টাকা ১০ পয়সা বা ৯.১৯ শতাংশ দর কমেছে। আরেক স্বল্পমূলধনি আজিজ পাইপসও দর ধরে রাখতে পারেনি। ১২ সেপ্টেম্বর ৯৬ টাকায় লেনদেন হওয়া শেয়ারদর ২৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যেই ১৪০ টাকা ২০ পয়সায় ঠেকে। এরপর কয়েকদিনেই দর কমেছে ২৫ টাকার মতো। সোমবার ১১ টাকা ৫০ পয়সা কমে শেয়ার লেনদেন হয়েছে ১১৫ টাকা ৬০ পয়সা। এ ছাড়াও লাফিয়ে লাফিয়ে দর বাড়ার পরে ব্যাপকহারে দর কমেছে ফার কেমিক্যাল, পেনিনসুলা চিটাগং, আফতাব অটোমোবাইলস, ইনডেক্স অ্যাগ্রো, মুন্নু সিরামিকস ও সি-পার্লের মতো কোম্পানির।

শীর্ষ ৫ খাত যেমন: লেনদেনের শীর্ষে ওষুধ ও রসায়ন খাত। সর্বোচ্চ ২০০ কোটি ৯০ লাখ টাকা, যা মোট লেনদেনের ১৬.২৭ শতাংশ। খাতটিতে ৩টি কোম্পানির দরবৃদ্ধি হয়েছে। আর ১০টির লেনদেন হয়েছে অপরিবর্তিত দরে। আর দরপতন হয়েছে ১৭টির। প্রকৌশল খাতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৯৪ কোটি টাকা লেনদেন হয়েছে। ৬টি কোম্পানির দরবৃদ্ধির বিপরীতে ১৫টির লেনদেন হয়েছে আগের দরে। দরপতন হয়েছে ২১টির। তৃতীয় স্থানে থাকা বিবিধ খাতে লেনদেন হয়েছে ১৪৫ কোটি ১০ লাখ টাকা। ১টির দরবৃদ্ধি, ৮টির দরপতন ও আগের দরে লেনদেন হয়েছে ৪টি কোম্পানির। চতুর্থ সর্বোচ্চ লেনদেন হয়েছে সেবা ও আবাসন খাতে। খাতের সবকটি বা ৪টির লেনদেনই হয়েছে দরপতনে। হাতবদল হয়েছে ১১৯ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। ১০৭ কোটি ৪০ লাখ টাকা লেনদেন করে তালিকার পঞ্চম স্থানে ছিল কাগজ ও মুদ্রণ খাত। ৩টির দরবৃদ্ধি, ১টির অপরিবর্তিত দরে ও ২টির লেনদেন হয়েছে দরপতনে।