সকল শিরোনাম

রূপগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি দখলের চেষ্টা, বাঁধা দেওয়ায় হত্যার হুমকি দেশে নির্বাচনী দামামা যন্ত্রণাদায়ক ইনজেকশন ছাড়াই নিয়ন্ত্রণে থাকবে ডায়াবেটিস! সামরিক ব্যয়ে বিশ্বের শীর্ষ ১০ দেশ পাগল নই যথেষ্ট সুস্থ, দাবি ট্রাম্পের হার্ট ভাল রাখে,ক্যান্সারের প্রবণতা কমায় অলিভ অয়েল রাজধানীতে ফানুস ওড়ানো নিষেধ বাংলাদেশ আনসার-ভিডিপি’র সমাবেশ অনুষ্ঠিত শীতে কাঁপছে দেশ চীনা সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতির নির্দেশ বিটুমিনের মান : দ্বন্দ্বে জড়ালো সওজ ও ঠিকাদার নির্বাচনের বছরটা কেমন যাবে? পারমাণবিক যুদ্ধ যেকোনো সময় : ধ্বংসযজ্ঞের সাক্ষী হবে বিশ্ব ‘মিস ইন্ডিয়া আসলে যৌনতা আর শরীর বিক্রির প্রতিযোগিতা’ ঢাকায় ভোট ২৫-২৬ ফেব্রুয়ারি যেমন দেখতে চাই ২০১৮ ফেরেশতা নই আবার অন্য কিছুও নই, আমি মানুষ-তারানা ইরানে সংঘর্ষে মৃতের সংখ্যা বাড়ছে ‘শত্রুদের’ দুষলেন খামেনি ৪৫ বছরে ২১ বার লোগো পরিবর্তন রূপালী ব্যাংকের স্থায়ী ক্যাম্পাসে যায়নি ৩৪ বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় শাওনের মামলার তদন্ত করবেন গোয়েন্দারা ‘ভেতরে ক্ষত অনুভব করি’ ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের মান ডিগ্রি কলেজের থেকেও দুর্বল’ বিনে পয়সায় জাপানে পড়ালেখার সুযোগ পুরুষদের ডায়াবেটিসের ১০ উপসর্গ


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

রূপগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি দখলের চেষ্টা, বাঁধা দেওয়ায় হত্যার হুমকি পাগল নই যথেষ্ট সুস্থ, দাবি ট্রাম্পের রাজধানীতে ফানুস ওড়ানো নিষেধ শীতে কাঁপছে দেশ পারমাণবিক যুদ্ধ যেকোনো সময় : ধ্বংসযজ্ঞের সাক্ষী হবে বিশ্ব ঢাকায় ভোট ২৫-২৬ ফেব্রুয়ারি হেঁটেই গাড়ির আগে যেবে মানুষ। বৈশ্বিক উষ্ণতায় গ্রিন হাউস প্রভাব ব্যাংক সেক্টরের দুর্যোগের এবং কিছু কথা নেতা কই? সহজেই বিদেশ ভ্রমণের ইচ্ছা পূরণ করুন….. একাদশ নির্বাচনে বড় প্রতিদ্বন্দ্বি আ’লীগের নতুন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা .রূপগঞ্জে পিএসসি পরীক্ষায় অনিয়মের অন্ত:নেই আগামী নির্বাচনে দুর্নীতিবাজ এমপিরা মনোয়ন পাবেন না : কাদের রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধে আসিয়ানকে ভূমিকা নেওয়ার আহবান

শীতে কাঁপছে দেশ

শীর্ষ সংবাদ, সকল শিরোনাম, সর্বশেষ সংবাদ | ২৩ পৌষ ১৪২৪ | Saturday, January 6, 2018

বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। সকালে প্রচ- কুয়াশার চাদরে ঢাকা থাকছে চারদিক। দিনের মাঝামাঝি সময়ে সূর্যের দেখা মিললেও কমছে না সারাদেশে জেঁকে বসা শীতের তীব্রতা। সেই সাথে ৩ দিন ধরে বইছে কোথাও মৃদু কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ।

এদিকে শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। নাকাল হয়ে পড়েছে বিভিন্ন বয়সের মানুষ। তীব্র শীতে সবচেয়ে দুর্ভোগে পড়েছে ছিন্নমূল ও নিম্ন আয়ের মানুষ। আর বিপাকে পড়েছে দৈনন্দিন খেটে খাওয়া কর্মজীবীরা। শৈত্যপ্রবাহে ঘন কুয়াশা ও প্রচ- ঠা-ায় দেখা দিয়েছে শীতজনিত নানা রোগ-বালাই। ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বোরোর বীজতলা, আলুসহ বিভিন্ন ফসল।

গতকাল শুক্রবার সকালে ঢাকার আবহাওয়া কার্যালয়ের আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান বলেন, দেশের শ্রীমঙ্গল অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী, ময়মনসিংহ, ঢাকা ও খুলনা বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এটি আগামী ৪ থেকে ৫ দিন অব্যাহত থাকবে।

এদিকে শীত জেঁকে বসেছে খোদ ঢাকাতে। পাশাপাশি ঘনকুয়াশার কারণে ব্যাহত হচ্ছে জীবনযাত্রা। গতকাল হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সাড়ে ৭ ঘণ্টা সকল আন্তর্জাতিক বিমান উঠানামা বন্ধ রাখা হয়।

এদিকে বিমানের মতো ঘন কুয়াশায় পদ্মার শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ী নৌপথে প্রায় ৬ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর আবার ফেরি চলাচল শুরু হয়েছে। বিআইডবিস্নউটিসি’র শিমুলিয়া ঘাটের এজিএম খন্দকার শাহ নেওয়াজ জানান, গতকাল শুক্রবার ভোর ৫টায় দেশের গুরুত্বপূর্ণ এই নৌপথে ঘন কুয়াশার কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। হঠাৎ কুয়াশা শুরু হওয়ায় যানবাহনসহ ৫টি ফেরি মাঝ নদীতে আটকা পড়ে। এছাড়া দুই ঘাটে আটকা পড়ে দেড় শতাধিক গাড়ি। কুয়াশা কেটে গেলে বেলা ১১টায় আবার ফেরি চলাচল শুরু করা হয়।

অন্যদিকে, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথেও প্রায় আড়াই ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর আবার ফেরি চলাচল শুরু করে। দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক আবু আবদুল্লাহ বলেন, দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে সকাল সাড়ে ৭টায় কুয়াশার কারণে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়। হঠাৎ কুয়াশা শুরু হওয়ায় মাঝ নদীতে আটকা পড়ে ৪টি ফেরি। সকাল ১০টায় কুয়াশা কেটে গেলে আবার ফেরি চলাচল শুরু হয়।

বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষে মুখপাত্র একেএম রেজাউল করিম জানিয়েছেন, ঘন কুয়াশার কারণে গতকাল শুক্রবার ভোর ২টা ৪৫ মিনিট থেকে সকাল ১০টা ১১ মিনিট পর্যন্ত আমরা বিমান উঠানামা বাতিল করতে বাধ্য হয়েছি। তিনি বলেন, এ সময় শারজাহ থেকে এয়ার এরাবিয়ার দু’টি এবং বাংলাদেশ বিমানের একটি আন্তর্জাতিক ফ্লাইটকে শাহজালালে অবতরণ করতে না দিয়ে কলকাতায় পাঠানো হয়েছে। এছাড়া দুবাই থেকে আগত বাংলাদেশ বিমানের একটি এবং কুয়ালালামপুর থেকে আগত ইউএস বাংলা এয়ার লাইন্সের একটি ফ্লাইটকে চট্টগ্রামে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া কুয়ালালামপুর থেকে আগত ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের আরো একটি ফ্লাইটকে মায়ানমারের মান্দালয়ে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

গতকাল দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল খুলনা বিভাগের যশোরে ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি এবং সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল একই বিভাগের মংলায় ২৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তবে গত বৃহস্পতিবার চুয়াডাঙ্গায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ০৬ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

ঢাকা বিভাগে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ফরিদপুরে ০৯ দশমিক ২ ডিগ্রি। ময়মনসিংহ বিভাগের নেত্রকোনায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ০৯ দশমিক ৪ ডিগ্রি। সিলেট বিভাগে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল শ্রীমঙ্গলে ০৯ দশমিক ৪ ডিগ্রি। রাজশাহী বিভাগে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ঈশ্বরদীতে ৮ ডিগ্রি। রংপুর বিভাগে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল দিনাজপুরে ০৮ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বরিশালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ০৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আমাদের দিনাজপুর প্রতিনিধি জানান, দিনাজপুরে গতকাল শুক্রবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৮ দশমিক ডিগ্রি সেলসিয়াস। এটিই এ পর্যন্ত এই জেলায় এই মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

দিনাজপুর আঞ্চলিক আবহাওয়া অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তোফাজ্জুর হোসেন জানান, দিনাজপুরে গত ৫ দিন ধরে ১১ থেকে ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসে তাপমাত্রা উঠানামা করছে। হঠাৎ করেই কমতে শুরু করেছে তাপমাত্রা। শুক্রবার জেলার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৮ দশমিক ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত বৃহস্পতিবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ৮ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

তিনি জানিয়েছেন, গত ৩ দিন ধরে এই অঞ্চল দিয়ে বইতে শুরু করেছে শৈত্যপ্রবাহ। তাই এই তাপমাত্রা আরও কমতে পারে।

ঘন কুয়াশার কারণে সকালে ১০ ফুট দূরেও কোনো কিছু দেখা যাচ্ছে না। সড়কে যানবাহন হেড লাইট জ্বালিয়ে চলাচল করছে। শীতবস্ত্রের আশায় গরিব ছিন্নমূল মানুষ চেয়ে আছে। এদিকে প্রচ- শীতের কারণে দেখা দিয়েছে বিভিন্ন শীতজনিত রোগ-বালাই। হাসপাতালে বেড়েছে নিউমোনিয়া, ডায়েরিয়া, আমাশয়, হাঁপানি, পেটের পীড়াসহ বিভিন্ন রোগীর সংখ্যা।

দিনাজপুর জেনারেল হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. আব্দুল ওয়াহেদ জানান, এই শীতে শিশুদের গরম কাপড় দিয়ে মুড়িয়ে রাখার এবং শিশুকে যাতে শীত না লাগে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

ঘন কুয়াশা ও শীতে বোরো বীজতলা, আলুসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন কৃষকরা। দিনাজপুরের সদর উপজেলা উলিপুর এলাকার কৃষক রফিকুল ইসলাম জানান, শীতের কারণে তার বোরো বীজতলা ও আলু খেতে রোগ দেখা দিয়েছে। এতে বাড়তি অর্থ ব্যয় করে ফসলে ওষুধ দেয়া হচ্ছে।