সর্বশেষ সংবাদ: বিজ্ঞানমনস্ক জ্ঞানভিত্তিক সমাজ বিনির্মানে শিক্ষকদের ভূমিকা শীর্ষক কর্মশালা নির্বাচনী মাঠে একঝাঁক তরুণ মনোনয়নপ্রত্যাশী খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়েও উদ্বেগজনক নির্বাচনী প্রচারণায় ঘুম নেই ঢাকা দক্ষিনের প্রার্থীদের ৥ সড়ক দুর্ঘটনা : মায়া কান্নায় কি লাভ? ডেমরায় ট্রাফিকের ঝটিকা অভিযান ও অপরূত কিশোরী উদ্ধার সিসি ক্যামেরার আওতায় রামপুরা ট্রাফিক জোন ঢাকা-৫ আসনে বিএনপি-আ’লীগে একাধিক প্রার্থী, সুবিধাজন অবস্থানে জাপা খালেদাকে জেলে রেখে নির্বাচনের কথা ভাবতে পারে না বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ গ্রহন না করলে বিএনপি অস্থিত্ব সংকটে পড়বে

সকল শিরোনাম

৬ কারণে বিশ্বকাপ জিতবে ব্রাজিল সবার জন্য স্বাস্থ্য প্রধানমন্ত্রীর কানাডা সফর ৬ জুন  দ্রব্যমূল্য বাড়ার মাস কী রমজান! সবকিছু স্বপ্নের মতো মনে হচ্ছে লিখিত স্থগিতাদেশ পেলে গাজীপুর সিটি নির্বাচনের জন্য আপিল করা হবে : অ্যাটর্নি জেনারেল সৌহার্দ্যপূর্ণ আন্তঃবাহিনী সম্পর্ক বজায় রাখার আহবান আইজিপির গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন ২৬ জুন বিজ্ঞানমনস্ক জ্ঞানভিত্তিক সমাজ বিনির্মানে শিক্ষকদের ভূমিকা শীর্ষক কর্মশালা নির্বাচনী মাঠে একঝাঁক তরুণ মনোনয়নপ্রত্যাশী দলের নয়, কাজের লোককে ভোট দিন: ওবায়দুল কাদের খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়েও উদ্বেগজনক নির্বাচনী প্রচারণায় ঘুম নেই ঢাকা দক্ষিনের প্রার্থীদের ৥ সড়ক দুর্ঘটনা : মায়া কান্নায় কি লাভ? ডেমরায় ট্রাফিকের ঝটিকা অভিযান ও অপরূত কিশোরী উদ্ধার এমপি হতে শেষ চেষ্টায় মনোনয়ন প্রত্যাশীরা যারাই ক্ষমতায় আসে তারাই ক্ষমতার অপপ্রয়োগ করে: ড. কামাল রাজধানীর জলাবদ্ধতা নিরসনে ৫টি খাল খনন করবে ওয়াসা যৌন হয়রানি প্রতিরোধে খসড়া আইনের প্রস্তাব সিসি ক্যামেরার আওতায় রামপুরা ট্রাফিক জোন ঢাকা-৫ আসনে বিএনপি-আ’লীগে একাধিক প্রার্থী, সুবিধাজন অবস্থানে জাপা ফখরুলের বক্তব্যের ব্যাখ্যা দিলেন রিজভী কালবৈশাখীর কারণে রূপালী ব্যা‍ংকের লিখিত পরীক্ষা বাতিল খালেদাকে জেলে রেখে নির্বাচনের কথা ভাবতে পারে না বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ গ্রহন না করলে বিএনপি অস্থিত্ব সংকটে পড়বে


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

রোহিঙ্গাদের বিতাড়িত করতে আন্দোলনে নেমেছে কাশ্মীরের স্থানীয়রা জম্মু কাশ্মীরে ভারতীয় সেনাদের গুলিতে নিহত ৬ সামরিক ব্যয়ে বিশ্বের শীর্ষ ১০ দেশ চীনা সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতির নির্দেশ আড়াই হাজার কোটি রুপি কর ফাঁকি দিয়েছে পাঁচ অপারেটর ইরানে সংঘর্ষে মৃতের সংখ্যা বাড়ছে ‘শত্রুদের’ দুষলেন খামেনি ট্রাম্পের ‘জবাব’ দিল চীন! পশ্চিমকে বাঁচান, আহ্বান ট্রাম্পের কিভাবে রাজনৈতিক নবজাতক থেকে ফ্রান্সের সর্বকনিষ্ঠ প্রেসিডেন্ট হলেন ম্যাক্রোঁ ফ্রান্সের নতুন প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ লন্ডন হামলা স্থায়ী হয়েছিল ৮২ সেকেন্ড সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘিত হলে নির্মম হামলা করবে উত্তর কোরিয়া উচ্চ ক্ষমতার রকেট-ইঞ্জিন পরীক্ষা চালাল উত্তর কোরিয়া পূর্ব চীন সাগরে যুক্তরাষ্ট্র ও জাপানের নৌ-মহড়া কাবুলে সামরিক হাসপাতালে আইএসের হামলা, নিহত ৩০

পশ্চিমকে বাঁচান, আহ্বান ট্রাম্পের

আন্তর্জাতিক, ছবি স্লাইড, সকল শিরোনাম, সর্বশেষ সংবাদ | ২৪ আষাঢ় ১৪২৪ | Saturday, July 8, 2017

মিত্র দেশে দাঁড়িয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বক্তৃতায় আজ বললেন, পশ্চিমী সভ্যতা বিপন্ন। আর পোলান্ডের মতো দেশ সন্ত্রাস এবং উগ্রপন্থার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে পশ্চিমী স্বাধীনতা রক্ষা করতে পারবে বলে আশাও প্রকাশ করলেন তিনি।

 

গতকাল হামবুর্গে জি২০ সম্মেলনে যোগ দেওয়ার আগে পোলান্ডে দাঁড়িয়ে কিছুটা সমালোচনা করলেন রাশিয়ারও। জি২০-র সম্মেলনের ফাঁকে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে তার প্রথম মুখোমুখি বৈঠক করার কথা। তার আগে পোলান্ডেই ট্রাম্প রাশিয়ার উদ্দেশে বলে গেলেন, ‘দায়িত্বশীল দেশগুলির গোষ্ঠীতে যোগ দিক তারা।’

 

১৯৪৪ সালে নাৎসি দখলদারদের বিরুদ্ধে ওয়ারশ বিদ্রোহে প্রায় ২ লক্ষ পোলিশ নাগরিককে জীবন দিতে হয়েছিল। ক্রাসিনসকি স্কোয়ারে তাদের স্মৃতিসৌধের সামনে গতকাল বৃহস্পতিবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট বক্তৃতা দেন। ট্রাম্পের মতোই এ দেশের রক্ষণশীল সরকার অভিবাসন নিয়ে কড়া নীতি মেনে চলারই পক্ষপাতী। উগ্র জাতীয়তাবাদের দিকেই পাল্লা ভারী।

 

সেই হাওয়া কাজে লাগিয়ে ট্রাম্প বলেন, ‘‘পোলিশ ইতিহাস থেকেই আমরা জানি পশ্চিমী শক্তির টিকে থাকার ক্ষেত্রে কৌশলটাই একমাত্র পথ নয়, মানুষের বেঁচে থাকার সদিচ্ছার উপরেও তা নির্ভরশীল। তা এখন সব চেয়ে মৌলিক প্রশ্নটা হচ্ছে, পশ্চিম নিজেকে বাঁচিয়ে রাখতে আগ্রহী কি না।’’ এই সূত্রে ট্রাম্প বিঁধেছেন রাশিয়াকে। তিনি বলেছেন, ‘‘ইউক্রেন এবং অন্য দেশকে পঙ্গু করে দেওয়ার কর্মসূচি বন্ধ করুক ওরা। সিরিয়া আর ইরানে কট্টর শাসকদের সমর্থন করাটাও বন্ধ করতে হবে ওদের।’’ যদিও ট্রাম্পের দাবি উড়িয়ে পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেস্কভ বলেছেন, ‘‘রাশিয়া কারও পথে বাধা সৃষ্টি করছে না। আর ঠিক এই বিষয়গুলি স্পষ্ট করতেই জি-২০ সম্মেলনের ফাঁকে দুই প্রেসিডেন্টের আলোচনার জন্য আমরা অপেক্ষা করছি।’’

 

পোলান্ডে বক্তৃতায় উঠেছে উত্তর কোরিয়ার প্রসঙ্গ। উঠেছে মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের কথা। এসেছে সিরিয়ার কথাও। বাশার আল আসাদের দিকে ট্রাম্পের তির, ‘‘মানুষের জীবনের প্রতি যারা মূল্য দেয়, তারা কখনও রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহার সহ্য করতে পারে না।’’ বাদ যায়নি মার্কিন সংবাদমাধ্যমের কিছু বিশেষ চ্যানেলকে সমালোচনা করাও।

 

কথা হয়েছে মার্কিন গ্যাস অর্থনীতি নিয়েও। ইউরোপে তরল প্রাকৃতিক গ্যাসের বাজার এখন বাড়াতে চাইছে আমেরিকা। ট্রাম্প ওয়ারশ-এ এসে তিন সাগরের সম্মেলনে (বাল্টিক, আড্রিয়াটিক এবং কৃষ্ণ সাগর) যোগ দেন। পোলান্ড সরকারও রাশিয়ার উপর থেকে শক্তি-নির্ভরতা কমাতে চাইছে। এ দেশে গত মাসেই প্রথম এসে পৌঁছেছে তরল প্রাকৃতিক গ্যাসবাহী মার্কিন জাহাজ।