সকল শিরোনাম

সীতাকুণ্ডে অজ্ঞাত রোগে ৯ জনের মৃত্যু সরকার দেশের পরিবেশ ও মানুষকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিচ্ছে: রিজভী সরকার অবাধ তথ্য প্রবাহে বিশ্বাস করে : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলেছ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীর বিশ্ব অবাক করা আবিষ্কার ‌‘দেশকে অস্থিতিশীল করার চক্রান্ত চলছে’ দেশে আল্লাহর গজব পড়েছে: এরশাদ দুই নগরে নৌকা চাই… বাহ! ভালইতো… ঢাকায় প্রতি ১১ জনের একজন চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত ‘গাড়ির চাপ দেখলেই মন্ত্রী-এমপিদের ধৈর্য মানে না’ বাংলাদেশকে সমর্থন দেবে থাইল্যান্ড ‘মুসলিমরা ডোনাট খায় না’ গুজবের নেপথ্যে পশ্চিমকে বাঁচান, আহ্বান ট্রাম্পের যানজট : গতি নেই; আছে দুর্গতি! ‘ঈদ চাঁদাবাজি’ বন্ধ হউক চালের দাম নিয়ন্ত্রণে আসছে না কেন? ক্ষমতাওয়ালাদের পাহাড় : আর লাশগুলো আমাদের! প্রিয়াঙ্কার প্রেমে পড়েছেন ‘দ্য রক’ সবুজ খেলে শরীরে যা বদলে যাবে! ব্যাংকিং খাতে অর্থমন্ত্রীর ‘পাপ কর’! ভোটের দিতে গিয়ে অর্থমন্ত্রী ভ্যাটের বাজেট দিয়ে ফেলেছেন : ইশতিয়াক রেজা হেফাজত এখন ‘গলার কাটা’ আ.লীগের, ভেতরে-বাইরে সমালোচনা বাড়ছে! শূকরের মাংসে ভ্যাট তুলে দিলেন অর্থমন্ত্রী: মানুষকে বোকা বানালেন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে বরাদ্ধ বৃদ্ধি ভোক্তাদের সঙ্গে প্রহসন : ড. শামসুল


এ পাতার অন্যান্য সংবাদ

শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলেছ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে বাংলাদেশের বিজ্ঞানীর বিশ্ব অবাক করা আবিষ্কার দেশে আল্লাহর গজব পড়েছে: এরশাদ দুই নগরে নৌকা চাই… ঢাকায় প্রতি ১১ জনের একজন চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত ‘গাড়ির চাপ দেখলেই মন্ত্রী-এমপিদের ধৈর্য মানে না’ বাংলাদেশকে সমর্থন দেবে থাইল্যান্ড ‘মুসলিমরা ডোনাট খায় না’ গুজবের নেপথ্যে পশ্চিমকে বাঁচান, আহ্বান ট্রাম্পের যানজট : গতি নেই; আছে দুর্গতি! চালের দাম নিয়ন্ত্রণে আসছে না কেন? ক্ষমতাওয়ালাদের পাহাড় : আর লাশগুলো আমাদের! প্রিয়াঙ্কার প্রেমে পড়েছেন ‘দ্য রক’ সবুজ খেলে শরীরে যা বদলে যাবে! হেফাজত এখন ‘গলার কাটা’ আ.লীগের, ভেতরে-বাইরে সমালোচনা বাড়ছে!

ব্যাংকে জমে থাকা ৬১৪ কোটি টাকার লভ্যাংশ উধাও

ছবি স্লাইড, জাতীয় সংবাদ, শিক্ষা সাহিত্য, সকল শিরোনাম, সর্বশেষ সংবাদ | ২৫ বৈশাখ ১৪২৪ | Monday, May 8, 2017

বেসরকারি শিক্ষকদের বেতন

---নিউজ-বাংলাদেশ, ঢাকা: বেসরকারি স্কুল-কলেজ শিক্ষকদের বেতন খাতের জমে থাকা ৬১৪ কোটি টাকার লভ্যাংশ তুলে নিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের কিছু কর্মকর্তা। বাংলাদেশ ব্যাংকের তদন্ত দলের অনুসন্ধানে এমন তথ্য উঠে এসেছে। তাদের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বেসরকারি শিক্ষকদের বেতনের বরাদ্দ ৬১৪ কোটি টাকা বিতরণ করা না হলেও সে টাকা অর্থ মন্ত্রণালয়ে ফেরত যায়নি। এই টাকার লভ্যাংশ তুলে নেওয়া হয়েছে। তবে অধিদপ্তরের দাবি, এ খাতে কোনো অনিয়ম হয়নি, শিক্ষকদের প্রয়োজনেই টাকা রেখে দেয়া হয়েছে।

দেশের ৫ লাখ বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসার শিক্ষক সরকারের এমপিও সুবিধা পান। এসব শিক্ষকের বেতন-ভাতা পরিশোধে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরে প্রতিমাসে অর্থ ছাড় করে অর্থ মন্ত্রণালয়। রাষ্ট্রায়ত্ত্ব চারটি ব্যাংকের মাধ্যমে এই অর্থ দেয়া হয়। তবে সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংকের তদন্তে এই বরাদ্দের অর্থ ব্যবহারে বড় অনিয়ম ধরা পড়েছে।

মাউশির কর্মকর্তারা জানান, বিভিন্ন জটিলতায় অনেক শিক্ষক প্রতি মাসে বেতন তুলতে পারেন না। সেই অর্থ ব্যাংকে থেকে যায়। এভাবে কয়েক বছরে রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংকে জমা হয়েছে প্রায় ৬১৪ কোটি টাকা। এই টাকার হিসাব গত তিন বছরে জানোনো হয়নি অর্থ মন্ত্রণালয়কে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুসন্ধানে দেখা গেছে, বেতন খাতে খরচ না হওয়া টাকা অর্থবছর শেষে অর্থ মন্ত্রণালয়ে ফেরত দেয়ার নিয়ম থাকলেও তা মানা হয়নি। মাউশি কর্মকর্তাদের একটি অংশ ব্যাংক কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগসাজশে তুলে নিয়েছেন তহবিলের লভ্যাংশ।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদন অর্থ মন্ত্রণালয়ে জমা হওয়ার পর ১২ এপ্রিল তা মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরেও পাঠানো হয়েছে। তবে অনিয়মের অভিযোগ মানছে না অধিদপ্তর।

এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের অভিযোগ, মাসের নির্ধারিত তারিখে বেতনের সরকারি অংশ তুলতে গিয়ে অনেকেই সমস্যায় পড়ছেন। অনেকে আবার দীর্ঘদিন পাচ্ছেন না এমপিও সুবিধা।

বেতন আটকে রেখে লভ্যাংশ তুলে নেয়ার অভিযোগের বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়কে এখনো ব্যাখ্যা দেয়নি মাউশি। তবে অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা বলছেন, শিক্ষকদের বেতন খাতে ব্যাংকে জমা টাকার হিসাব মেলানো হচ্ছে। শিগগিরই জবাব পাঠানো হবে অর্থ মন্ত্রণালয়ে।