সকল শিরোনাম

ঢাকা-৫ আসন : ডেমরায় জাতীয় পার্টির গণসংযোগ ও কর্মিসভা ৬ দফা দাবি : ডেমরায় রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল শ্রমিকদের জনসভা বদলে যাবে ৩০০ ফুট সড়ক অপরাধী শনাক্ত করতে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ছে টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী নিহত ঐক্যফ্রন্ট প্রস্তুতি নিচ্ছে, নির্বাচনে আসবে: কাদের পঞ্চগড় থেকে দেশের দীর্ঘতম রুটে ট্রেনচলাচল শুরু বাম জোটের নির্বাচন তফসিল প্রত্যাখ্যান সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে ইসির সাহসী পদক্ষেপ চাই: বি চৌধুরী খেজুরের ভেতর ইয়াবা! ‘আমার বাড়ি ভোলা, পারলে কিছু কইরেন’ আ’লীগের মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী ২১ নভেম্বর কোনো অপশক্তি ভর করুক তা কাম্য নয়: নাসিম তাবলিগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়া রণক্ষেত্র, আহত ১০ দাবি না মানলে নির্বাচন হতে দেয়া হবে না: রাজশাহীতে ফখরুল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট বুঝে পেল বাংলাদেশ শেখ হাসিনার মনোনয়ন ফরম কিনলেন ওবায়দুল কাদের যে বেটারা আমার গাড়ি ঘুরিয়ে দিয়েছে, আমি ওদের মাথা ঘুরিয়ে দেব: কাদের সিদ্দিকী এই তফসিলে ঐক্যফ্রন্ট নির্বাচনে যাবে না সচিব হলেন দুই কর্মকর্তা, ভারপ্রাপ্ত সচিব ৩ জন দুই-একদিনের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন: কাদের নির্বাচনে ৬ লাখ আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মোতায়েন থাকবে: সিইসি তফসিল ৮ নভেম্বরই বহাল থাকুক: ইসিকে জাতীয় পার্টি টেকনাফে গোলাগুলিতে যুবক নিহত


ধর্মীয় স্বাধীনতার স্বরূপ

ইসলাম ও জীবন, ছবি স্লাইড | ১২ চৈত্র ১৪২৩ | Sunday, March 26, 2017

মাসউদুল কাদির :: ইসলামে কোনো বাড়াবাড়ি নেই। ধর্ম নিয়ে কোনো রেষারেষি নেই। ইসলাম সমতা ও সাম্যের জীবনব্যবস্থার নাম। ইসলামের শেষ নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম শান্তি, সম্প্রীতি ও বন্ধুত্বপরায়ণ এক রাষ্ট্র গঠন করেছিলেন মদীনায়। মদীনার অন্যান্য ধমীয় বেত্তাদের সঙ্গে যে শান্তিচুক্তি করেছিলেন তা এখনো মদীনাসনদ নামে পৃথিবীবিখ্যাত হয়ে আছে। মদীনার সংবিধানের কোনো না কোনো পয়েন্ট পৃথিবীর তাবৎ সংবিধান রচনায় কাজে লেগেছে। 




ইসলাম মানতে কাউকে বাধ্য করা যাবে না। কোনো কিছুর প্রলোভন দেখিয়েও কাউকে ইসলামে টানা যাবে না। কেবল স্বেচ্ছায়, বুঝে-শোনে, সুস্থ মস্তিষ্কে ভেবে-চিন্তে ইসলামে আত্মসমর্পণ করলেই মুসলমান হবে। মানুষের বিশ্বাসকে ইসলামে অবমূল্যায়ন করা হয়নি। ইসলাম কোনো চাপাচাপির জায়গা নয়।



‘(হে নবী,) আপনার মালিক চাইলে এ জমিনে যত মানুষ আছে তারা সবাই ঈমান আনতো; (কিন্তু তিনি তা চাননি, তাছাড়া) আপনি কি মানুষদের জোরজবরদস্তি করবেন যেন তারা সবাই মুমিন হয়ে যায়!’ [সূরা ইউনুস : আয়াত ৯৯]



মক্কায় নবীজীর উপর এরকম আয়াত হয়েছে। নবীজী চাইতেন, মক্কার আবূ জেহেল, ওমরসহ সবাই ইসলামের আলোকে আলোকিত হোক। সত্য ও সমৃদ্ধির পথে মানুষকে নিয়ে আসতে নবীজী যারপরনাই চেষ্টা করতেন। মদীনা মুনাওয়ারায় হিজরত করার পর আরো স্পষ্ট করে আল্লাহ তাআলা বললেন, ‘(আল্লাহর) দ্বীনের ব্যাপারে কোনো জোরজবরদস্তি নেই, (কারণ) সত্য (এখানে) মিথ্যা থেকে পরিষ্কার হয়ে গেছে।’ [সূরা বাকারা : আয়াত ২৫৬]



কুরআনের চমকিত এই ঘোষণায় মুসলমানগণ যেন থমকে দাঁড়িয়েছিলেন। মানবতার নবী রাসূলুল্লাহ সা. জোরজবরদস্তি করা যাবে না দিয়ে যার যার ধর্ম পরিপালনে অসাম্প্রদায়িক এক মনোভাবের প্রকাশ ঘটিয়েছেন। এই মতপ্রকাশে বিশ্ববাসীও নড়েচড়ে বসে। কারণ, যখন বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্য বলত, ‘হয় খিষ্টান হও, নয়তো খুন হও’। মুসলমানরা যখন ইহুদীমতবাদ থেকে নিজেদের সন্তানদের জোর করে ইসলামে নিয়ে আসতে চেয়েছিলেন তখনই আল্লাহর রাসূল সা. ধর্মীয় স্বাধীনতার এই ঘোষণা দিয়েছিলেন।



আজ ধর্ম নিয়ে তো নতুন করে বাড়াবাড়ির প্রয়োজন নেই। এটা ইসলামেরও কোনো বিধান নয়। তাই ধর্মীয় স্বাধীনতা ভোগ, পালনে কোনো বাধা না দেওয়া ইসলামেরই নির্দেশনা।



লেখক : ছড়াকার ও আলেম