সকল শিরোনাম

সেবা খাতে ঘুষ-দুর্নীতি বন্ধ হবে কবে? কেন সাংবাদিক নির্যাতন? সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর সর্বোচ্চ সাজা ৫ বছরের জেল রূপগঞ্জে গাজা ও ইয়াবাসহ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেপ্তার আসামের তালিকা নিয়ে বাংলাদেশের দুশ্চিন্তার কোনো কারণ নেই: ভারতীয় হাইকমিশনার প্রধানমন্ত্রী বললে পদত্যাগ করব : নৌমন্ত্রী শিশুরা আমাদের চোখ-কান খুলে দিয়েছে : মনিরুল শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নিলেন প্রধানমন্ত্রী তারকারা রাস্তায় পুলিশের নামে মামলা দিতে সার্জেটকে বাধ্য করলো শিক্ষার্থীরা আন্দোলনও থামুক; সড়কও নিরাপদ হউক দু:স্থদের মাঝে বিসিএস পুলিশ পরিবারের ঈদ বস্ত্র বিতরণ ৬ কারণে বিশ্বকাপ জিতবে ব্রাজিল সবার জন্য স্বাস্থ্য প্রধানমন্ত্রীর কানাডা সফর ৬ জুন  দ্রব্যমূল্য বাড়ার মাস কী রমজান! সবকিছু স্বপ্নের মতো মনে হচ্ছে লিখিত স্থগিতাদেশ পেলে গাজীপুর সিটি নির্বাচনের জন্য আপিল করা হবে : অ্যাটর্নি জেনারেল সৌহার্দ্যপূর্ণ আন্তঃবাহিনী সম্পর্ক বজায় রাখার আহবান আইজিপির গাজীপুর সিটি করপোরেশনের নির্বাচন ২৬ জুন বিজ্ঞানমনস্ক জ্ঞানভিত্তিক সমাজ বিনির্মানে শিক্ষকদের ভূমিকা শীর্ষক কর্মশালা নির্বাচনী মাঠে একঝাঁক তরুণ মনোনয়নপ্রত্যাশী দলের নয়, কাজের লোককে ভোট দিন: ওবায়দুল কাদের খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা আগের চেয়েও উদ্বেগজনক নির্বাচনী প্রচারণায় ঘুম নেই ঢাকা দক্ষিনের প্রার্থীদের


সার নিয়ে অবৈধ বাণিজ্য

অন্যান্য, সকল শিরোনাম, সর্বশেষ সংবাদ | ২ মাঘ ১৪২২ | Friday, January 15, 2016

 

---এক সময়ের ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। নিজের দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে বাংলাদেশের খাদ্য। শুধু খাদ্যশস্য নয়, কৃষি উত্পাদনে বাংলাদেশের সাফল্য অসামান্য। দেশের কৃষি উত্পাদনে কৃষকের যেমন অবদান রয়েছে, তেমনি সরকারও কৃষিতে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে ব্যাপক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। কৃষিতে ব্যবহূত সার, বীজ, সেচের পানি সুলভ ও সহজলভ্য করতে সরকারের পক্ষ থেকে ভর্তুকির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সঠিক সময়ে সেচ দিতে বিদ্যুৎ ও জ্বালানিতে ভর্তুকি দেওয়া হচ্ছে। মাঠের ফসলে সার দিয়েও ভর্তুকি দিচ্ছে সরকার। দেশে উত্পাদিত সার পাঁচ হাজার ৪০০ ডিলারের মাধ্যমে কম দামে কৃষকের কাছে পৌঁছে দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। কিন্তু বাস্তবতা একেবারেই ভিন্ন। ভর্তুকির সার নিয়ে একটি চিহ্নিত সিন্ডিকেট কিভাবে ব্যবসা করছে তার বাস্তব চিত্র বেরিয়ে এসেছে কালের কণ্ঠ’র অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে। চট্টগ্রামের টিএসপি সার কমপ্লেক্সের ডিএপি সার কারখানার কিছু অসাধু কর্মকর্তার সহযোগিতায় মাঝিরহাটের দুটি ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট এই অবৈধ বাণিজ্য করে আসছে।

সরকার প্রতি কেজি টিএসপি ও ডিএপি সারে ১৮ টাকা ভর্তুকি দেয়। নিয়ম অনুযায়ী সরকারের ভর্তুকির সার অনুমোদিত ব্যবসায়ীদের কাছে সরাসরি বিক্রি করার কথা। ডিলাররা বরাদ্দপত্র অনুযায়ী সার তুলে নিজেদের এলাকায় বিক্রি করবেন—এটাই নিয়ম। কিন্তু বাস্তবে তা হচ্ছে না। সার ডিলাররা তাঁদের বরাদ্দপত্র অবৈধ সিন্ডিকেটের কাছে বিক্রি করতে বাধ্য হন। কালের কণ্ঠে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, দুই সিন্ডিকেটের প্রথম সিন্ডিকেট বরাদ্দপত্র কিনে নিয়ে বিক্রি করে দেয় দ্বিতীয় সিন্ডিকেটের কাছে। এই দ্বিতীয় সিন্ডিকেটের কেউই সার ব্যবসায়ী নন। পরিবহন ব্যবসায়ী এই সিন্ডিকেট বরাদ্দপত্র বিক্রি করে ব্যবসায়ীদের কাছে। তিন হাত ঘুরে সার যায় ব্যবসায়ীদের কাছে। এর ফলে এলাকার কৃষককে বাধ্য হয়ে বেশি দামে সার কিনতে হয়। সরকারের ভর্তুকি দেওয়ার উদ্দেশ্য ব্যাহত হচ্ছে এভাবেই। সারের চালান থেকে পুলিশকেও উেকাচ দিতে হয়। আবার সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলে হিতে বিপরীত ঘটে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ করায় এক সার ব্যবসায়ীকে হত্যার হুমকি দেওয়ার খবরও এসেছে কালের কণ্ঠে। নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি করেছেন তিনি।

কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নের জন্যই সরকারের ভর্তুকি নীতি। অসাধু সিন্ডিকেট সরকারের এই উদ্দেশ্য ব্যাহত করছে। সারের ভর্তুকির সুফল পাচ্ছে না কৃষক। বাড়ছে উত্পাদন খরচ। কাজেই এই সিন্ডিকেট ও অসাধু কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। আমরা আশা করব, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।